চলতি মাসেই রাস্তায় নেমে ব্যাপক আন্দোলন করতে চলেছে বিজেপি। জেলা নেতৃত্বদের বলা হল প্রস্তুতি নিতে।

চলতি মাসেই রাস্তায় নেমে ব্যাপক আন্দোলন করতে চলেছে বিজেপি। জেলা নেতৃত্বদের বলা হল প্রস্তুতি নিতে।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে তৃণমূল জয়লাভ করার পরেই উত্তপ্ত বাংলার রাজনৈতিক পরিস্থিতি। তৃণমূল সমর্থকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে বিজেপি কর্মীদের মারধর এবং তাদের বাড়ি ভাঙচুর করার । এছাড়াও জায়গায় জায়গায় বিভিন্ন বিজেপি কর্মীর বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার ঘটনাও ঘটেছে। এদিকে বিজেপি কর্মী সমর্থকদের মনে বাড়ছে প্রবল বিক্ষোভ।

বিজেপি কর্মী সমর্থকদের অভিযোগ যে তারা নিরন্তর মার খাচ্ছেন অথচ তাদের সুরক্ষার জন্য কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্ব। গত শুক্রবার হুগলির চুঁচুড়ায় বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষকে ঘিরে ব্যাপক বিক্ষোভ দেখিয়েছে বিজেপির কর্মী সমর্থকরা।এদিকে রাজ্যজুড়ে বিজেপি কর্মীদের ওপর লাগাতার হামলার ঘটনায় এবং করোনার ইস্যুতে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে ব্যাপক আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।বিজেপি নেতৃত্ব অভিযোগ করেছে যে, জেলায় জেলায় তাদের কর্মীদের ওপর হামলা করছে তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা।

আরও পড়ুন-“অগ্নিকুন্ডের উপর বসে রয়েছে বাংলা।”- ভাটপাড়ায় দুষ্কৃতীদের ছোঁড়া বোমার আঘাতে ট্যাক্সি চালকের মৃত্যুতে বললেন রাজ্যপাল।

এখনো পর্যন্ত প্রাণ ভয়ে বহু বিজেপি কর্মী বাড়িছাড়া হয়ে রয়েছেন । এছাড়াও কেন্দ্র যথেষ্ট পরিমাণে টিকা পাঠালেও এই টিকা নিয়ে কালোবাজারি করছে রাজ্য সরকার।তাই বিজেপি পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে যে আগামী ১৯ শে জুন থেকে রাজ্যের রাস্তায় রাস্তায় ব্যাপক বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করবে বিজেপি। এই মর্মে জেলায় জেলায় আন্দোলন করার জন্য প্রস্তুতি নিতে নির্দেশ দিয়েছে জেলা বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্ব।

বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন, “একুশের বিধানসভা ভোটে বিজেপি পেয়েছে ৩৮% ভোট। অন্য রাজ্য হলে আমরা সরকার গঠন করতে পারতাম। এখনো আমাদের কাছে ৭৫ টা আসন দখলে রয়েছে। বিধানসভায় আমরা ওদের সমুচিত জবাব দেবো।

আরও পড়ুন-গুজরাটে জারি নতুন আইন। আর ভিন্ ধর্মে করা যাবে না বিয়ে।

রাজ্যের চারদিকে অত্যাচার আর লুন্ঠন শুরু হয়ে গিয়েছে। সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন। আমরা রাস্তায় নেমে চরম আন্দোলন করবো।“তবেই দিলীপ ঘোষের মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তৃণমূল বিধায়ক তাপস রায় বলেছেন, “বাংলায় দমবন্ধকর পরিস্থিতির উদ্রেক ঘটাচ্ছে বিজেপি।

আরও পড়ুন-দলীয় কর্মীদের উপর আক্রমণ করে চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যের প্রশংসা করায় তথাগতকে জবাব দিলীপ ঘোষের।

নিরন্তর হুমকি দেওয়াই ওদের কাজ । দিলীপ ঘোষের এবার চলে যাওয়ার সময় হয়ে গিয়েছে। তাই এসব কথা বলে তিনি কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সুনজরে থাকতে চাইছেন।”