অফবিটনিউজ

আজ‌ও রহস্যের মধ্যে আবৃত বারমুডা ট্রায়াঙ্গেল

নিজস্ব প্রতিবেদন: বহুদিন থেকেই রহস্য গল্পের পাতায় স্থান পেয়েছে বারমুডা ট্রায়াঙ্গেল। এই অঞ্চল সারা পৃথিবীর মানুষের মনে অদম্য কৌতূহলের সৃষ্টি করেছে। এই এলাকাটিতে জাহাজ, বিমান সারাজীবন ধরে একের পর এক অদৃশ্য হয়ে গিয়েছে। কিন্তু কেন? আজ‌ও রহস্যাবৃত এই বারমুডা ট্রায়াঙ্গেল।

আটলান্টিক মহাসাগরে তিন বিন্দু দ্বারা ঘেরা এই এলাকা হল বারমুডা ট্রায়াঙ্গেল। একে ডেভিলস্ ট্রায়াঙ্গেল বলেও অভিহিত করা হয়।সেই টানা ১৯৪৫ সাল থেকে এখনো পর্যন্ত বিভিন্ন রহস্যজনক ঘটনা ঘটেছে এই বারমুডা ট্রায়াঙ্গেলে। এই অঞ্চলে রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হয়ে গিয়েছে বড় বড় জাহাজ, যাত্রীবাহী বিমান, যুদ্ধবিমান।

আরও পড়ুন-গতকাল সম্পন্ন হল জগন্নাথ দেবের স্নানযাত্রা। ১৫ দিন বন্ধ প্রভুর দর্শন।

এর মধ্যে বেশকিছু জাহাজ এবং বিমানের ধ্বংসাবশেষ পাওয়া গিয়েছে, আবার কিছু জাহাজ বিমানের অস্তিত্ব কোনদিন মেলেনি। বিভিন্ন লেখকের তাদের রহস্যগল্পের পাতায় এই বারমুডা ট্রায়াঙ্গেলের কথা উল্লেখ করেছেন। রহস্যাবৃত এই অঞ্চলটির বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা আজ পর্যন্ত সঠিক ভাবে দিতে পারেননি বিজ্ঞানীরা।আটলান্টিক মহাসাগরের বারমুডা ট্রায়াঙ্গেল এর মত ভারতের রয়েছে ঠিক এ রকমই একটি ট্রায়াঙ্গেল, একে বলা হয় ভারতের বারমুডা ট্রায়াঙ্গেল।

প্রশান্ত মহাসাগরের চীনের কাছে এ রকমই একটি ট্রায়াঙ্গেল বিরাজমান। যাকে বলা হয় ড্রাগন ট্রায়াঙ্গেল । ভারতের যে বারমুডা ট্রায়াঙ্গেল রয়েছে তার তিন দিকে অবস্থিত ওড়িশার আমারদা রোড এয়ারফিল্ড, একদিকে রয়েছে ঝাড়খন্ড এবং অপরদিকে রয়েছে বাঁকুড়া। যার দরুণ এটিও একটি ট্রায়াঙ্গেল।

আরও পড়ুন-সাইকেলে চড়ে ডিম পাউরুটি বিক্রি করতে বেরিয়েছেন সোনু সুদ। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল ভিডিও।

এই এলাকাতেও আজ পর্যন্ত প্রায় ১৬ থেকে ১৭ টি বিমান দূর্ঘটনা ঘটেছে যার মধ্যে বেশীরভাগ যুদ্ধবিমান দূর্ঘটনা ঘটেছে। এখনো পর্যন্ত ২২ থেকে ২৫ জনের প্রাণ গিয়েছে ভারতের বারমুডা ট্রায়াঙ্গলের দূর্ঘটনায়। এই অঞ্চলের কাছাকাছি অবস্থিত ছিলো ওড়িশার আমারদা এয়ার ফিল্ড। এই এলাকায় একবার আমেরিকা এবং ইংল্যান্ডের যুদ্ধবিমানের মুখোমুখি সংঘর্ষে ৪ জন মারা গিয়েছিলেন।

এর কয়েকদিন পরেই প্রায় ১০ জনকে নিয়ে একটি বিমান এই এলাকার উপর দিয়ে যাওয়ার সময় ধ্বংস হয়েছিল। তার কয়েকদিন বাদে আরও একটি বিমান দুর্ঘটনা ঘটে। শেষ ২০১৮ সালে এখানে আরেকটি বিমান দূর্ঘটনা ঘটেছিলো। তবে ঠিক কেন এই দূর্ঘটনা ঘটেছিলো তার কোনো সঠিক তথ্য পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন-বাজারে আসতে চলেছে জিওর নতুন ফোন। জেনে নিন খুঁটিনাটি।

তবে বৈজ্ঞানিকদের মতে এই অঞ্চলের কাছেই অবস্থিত ছিল ঝাড়খন্ডে জাদুগোড়ার ইউরেনিয়াম খনি । এই ইউরেনিয়াম অত্যন্ত তেজস্ক্রিয় মৌল হওয়ার ফলে এই এলাকার ওপর দিয়ে যাওয়া বিমানের রাডার বন্ধ হয়ে গিয়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়েছিল সেগুলি । কিন্তু এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে কোন সঠিক তথ্য তারা দিতে পারেননি। তাই আজ‌ও ভারতের বারমুডা ট্রায়াঙ্গেল রহস্যাবৃত হয়ে রয়েছে।

Related Articles

Back to top button