“ওটা হল বঙ্গভঙ্গ দিবস”- পশ্চিমবঙ্গ দিবসের পরিপ্রেক্ষিতে শুভেন্দু অধিকারী কে কটাক্ষ তৃণমূলের।

“ওটা হল বঙ্গভঙ্গ দিবস”- পশ্চিমবঙ্গ দিবসের পরিপ্রেক্ষিতে শুভেন্দু অধিকারী কে কটাক্ষ তৃণমূলের।

নিজস্ব প্রতিবেদন: গত রবিবার দলের বিধায়কদের নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ দিবস পালন করেছেন বিরোধী নেতা শুভেন্দু অধিকারী। তিনি গতকাল আবার সরব হয়েছেন রাজ্য প্রশাসনের বিরুদ্ধে । শুভেন্দু অধিকারী অভিযোগ করেছেন যে বর্তমানের সরকার কোনদিন এই বিশেষ দিনটি প্রতি গুরুত্ব আরোপ করেনি। শুভেন্দু অধিকারী কে পাল্টা কটাক্ষ করেছেন তৃণমূল নেতা সুখেন্দু শেখর রায়।

এছাড়াও পশ্চিমবঙ্গ দিবস পালন পরিপ্রেক্ষিতে তৃণমূল মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম যথেষ্ট কটাক্ষ করেছেন শুভেন্দু অধিকারী কে। তিনি বলেছেন, “বাংলার মানুষ বিজেপিকে চাইছে না। ভোটের মাধ্যমেই বাংলার মানুষ বুঝিয়ে দিয়েছে যে বাংলায় বিজেপির কোন জায়গা নেই। তাই এখন বাংলার মানুষের মনে জায়গা নেওয়ার জন্য বিজেপি নানান দিবস পালন করে চলেছে।

আরও পড়ুন-উত্তরবঙ্গের বঞ্চনা নিয়ে সরব হলেন শুভেন্দু অধিকারী। কি বললেন তিনি ?

কথায় কথায় বাংলার মানুষকে ৩৫৬ ধারা জারি করার ভয় দেখিয়ে চলেছে বিজেপি। বাংলার মানুষ এটা কিছুতেই মেনে নেবেন না। ২০২৪ এ ওদের বিদায় ঘন্টা বাজবে পুরোপুরিভাবে।”এছাড়াও তৃণমূল নেতা সুখেন্দু শেখর রায় বলেছেন, “বাংলার বিভাজনের জন্য দুটি দলকে দায়ী বলে সকলেই জানে।

‌ একটি হলো মুসলিম লীগ এবং অপরটি হল হিন্দু মহাসভা। জিন্না এবং শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় দুজনে মিলে বাংলাকে ভাগ করেছেন। পশ্চিমবঙ্গ দিবস পালন করছে বিজেপি কিন্তু আমার মতে এটাকে ওদের বঙ্গভঙ্গ দিবস হিসেবে পালন করা উচিৎ। সাম্প্রদায়িকতার মাধ্যমে বাংলায় রাজনীতি করা যাবে না এই নির্দেশ সুপ্রিম কোর্ট বহু আগেই দিয়েছে।

আরও পড়ুন-“রাজ্যের তৃণমূলের মন্ত্রীদের সাথে যোগাযোগ রাখছেন বিজেপি বিধায়ক অগ্নিমিত্রা”- উঠলো জল্পনা

কিন্তু বিজেপি বারবার বাংলার মাটিতে সাম্প্রদায়িকতাকে এনে হাজির করছে তাদের রাজনীতিতে। সংবিধানকে অমান্য করছে ওরা।”এদিকে শুভেন্দু অধিকারী পাল্টা আক্রমণ শানিয়ে চলেছেন, “উনাদের আগে আমি উপদেশ দিচ্ছি আগে রাজ্যের জল পরিষ্কার করুন। ‌ উনারা দুয়ারে রেশন, দুয়ারে সরকার করছেন, এবার দুয়ারে গঙ্গা।

রাজ্যের মাটিতে বন্যার পর বন্যা। এবার উনারা সকলেই চিট ফান্ড কেলেঙ্কারিতে জেলে ঢুকবেন।”