মা শুভশ্রীকে দেখতে না পেয়ে হাউ হাউ করে কাঁদছে ছেলে ইউভান, তুমুল ভাইরাল ভিডিও!

মা শুভশ্রীকে দেখতে না পেয়ে হাউ হাউ করে কাঁদছে ছেলে ইউভান, তুমুল ভাইরাল ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন :-আরো একবার দ্বিতীয়বারের ঢেউ আছড়ে পড়েছে গোটা ভারতবর্ষে জুড়ে । মহামারীর এই ঢেউ সামলাতে রীতিমতো নাজেহাল হয়ে পড়ছে সাধারণ মানুষ থেকে চিকিৎসকরা ও বিশেষজ্ঞরা । ঠিক কি উপায় অবলম্বন করলে এই মহামারী থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে তা ভেবে কূলকিনারা পাচ্ছেন না অনেকে । এমনকি সরকারও । ইতিমধ্যে ভ্যাকসিন শেষের মুখে ।পর্যাপ্ত পরিমাণে ভ্যাকসিন নেই । তার সাথে সাথে নেই পর্যাপ্ত পরিমাণে অক্সিজেন ।যার ফলে আগামী দিনে দেখা দিতে পারে বড়োসড়ো সংকট গোটা দেশজুড়ে ।

মানুষ সচেতন হচ্ছে ঠিকই ।কিন্তু তার থেকেও বেশি মানুষ অসচেতন বিনা মাস্ক এ ঘুরে বেড়ানো অকারণে জমায়েত করা থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের ও সচেতন মূলক কাজ কর্মের সাথে জড়িয়ে পড়ছে ধীরে ধীরে প্রতিটি মানুষ । অন্যদিকে বেড়ে চলেছে করোনা আক্রান্তের গ্রাফ ।একের পর এক বিশ্ব রেকর্ড ভেঙে দিচ্ছে শুধুমাত্র ভারত বর্ষ ।এই করোনা আক্রান্ত হয়েছে অনেকেই । প্রাণ হারিয়েছেন আমাদের অনেক প্রিয় জন । তবে বেশ কিছুদিন আগে অর্থাৎ গত দুদিন আগে করোনা তে আক্রান্ত হয়েছিলেন শুভশ্রী গাঙ্গুলী ।

আরও পড়ুন-যে পদ্ধতিতে কাগজের মতো পাতলা আটার পাতলা রুটি বানাবেন যেভাবে, তার স্বাদ হবে দুর্দান্ত, রইলো ভিডিও সহ!

রাজ চক্রবর্তী তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে প্রচার করেছিলেন এবং তার সাথে মাঝে মধ্যে প্রচার করতে দেখা গিয়েছিল শুভশ্রী গাঙ্গুলী কে ।অকারনে জামায়াতের কারণে তার শরীরে এই ভাইরাস বাসা বেধেছে । এমনটা মনে করছেন অনেকে । তার পাশাপাশি তার রিপোর্ট পজেটিভ এলেও তার ছেলে রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে ।তাই ছোট্ট ছয় মাসের বাচ্চাকে সে তার পরিচালিকার কাছে রেখে দিয়েছে । সে এখন সুস্থ আছে ।কিন্তু কেমন ভাবে কাটছে ছোট্ট ছেলের দিন ? সেটি জানার জন্য অপেক্ষারত ছিল তার অনুগামীরা । জানা গেল সম্প্রতি।

সম্প্রতি একটি ভিডিও ইউটিউবে প্রকাশিত হয়েছে সেখানে দেখা গেছে জুবান এর বিভিন্ন ক্রিয়া-কলাপ কখনো মুখে খাবার লাগিয়ে গোটা ঘর ঘুরে বেড়াচ্ছে । কখনো আবার দিদার সাথে খেলা করছে । আবার কখনও তার দুই চোখ চাইছে তার মাকে খুঁজে পেতে । অপরদিকে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে তার নিজস্ব সমস্ত আপডেট শুভশ্রী গাঙ্গুলী তুলে ধরছেন সকলের উদ্দেশ্যে । তার দিন কাটছে দুটি কুকুরছানা সাথে । সব মিলিয়ে তার অনুগামীরা প্রার্থনা করেছেন যাতে মা এবং ছেলের এই দূরত্ব যত তাড়াতাড়ি সম্ভব মিটে যায় ।