নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“কিছু আলু সিদ্ধ হতে চাইছে না । তারা আবার ফিরে যাবে।”- বেসুরো নেতাদের উদ্দেশ্যে মন্তব্য করলেন দিলীপ ঘোষ।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটের আগে রাজ্যে পালাবদলের হাওয়া উঠেছিল। জল্পনা তীব্র হয়েছিল যে এবারে রাজ্যে ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হতে চলেছে বিজেপি। বিজেপির তামাম নেতাকর্মীদের মুখে শোনা গিয়েছিল আত্মবিশ্বাসের ভাষণ। কেন্দ্রীয় নেতারাও আত্মবিশ্বাসের বলে বলিয়ান ছিলেন প্রথম থেকেই।

এমনকি কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতারা বাংলায় বিভিন্ন জনসভা, রোড শোতে স্লোগান তুলেছিলেন , ‘ইস বার দোশো পার।’ কিন্তু একুশের ভোটের ফলাফলে সম্পূর্ণ তৃণমূল ঝড়ে উড়ে গিয়েছে বিজেপি। রাজ্যে মাত্র ৭৭ টি আসন পেয়েছে বিজেপি। উল্টোদিকে ২১৩ টি আসন লাভ করে আবার তৃতীয়বার বাংলায় সরকার গঠন করেছে তৃণমূল। আর বিজেপির পরাজয়ের পরেই তৃণমূল থেকে বিজেপিত আগত নেতা নেত্রীরা বেসুরো হয়ে উঠেই আবার র‌ওনা দিয়েছেন তৃণমূলের ছত্রছায়া যেতে।

আরও পড়ুন-করোনা বিধি না মেনেই বিজয় মিছিল তৃণমূল সমর্থক দের। ভিডিও শেয়ার করে যথেষ্ট কটাক্ষ অগ্নিমিত্রা পলের

দীপেন্দু বিশ্বাস থেকে শুরু করে সোনালী গুহ, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় একের পর এক প্রাক্তন তৃণমূলের নেতারা যারা বিজেপিতে এসেছেন তারা বেসুরো হয়ে আবার তৃণমূলে ফিরে যেতে বদ্ধপরিকর। কিন্তু মুকুল‌ রায়ের মতো তাদের তৃণমূলে ফেরার পথটা মোটেই মসৃণ নয়।
এদিকে বেসুরোদের উদ্দেশ্যে কড়া বার্তা দিয়েছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি আগেই বলেছিলেন, “এক গাছের ছাল , অন্য গাছে লাগে না।”

আরও পড়ুন-২০২৪ এর ভোটে মুখ্যমন্ত্রী লড়াই করতে পারবেন কি না এটাই সন্দেহের বিষয়”- মন্তব্য দিলীপ ঘোষের।

একুশের ভোটের পরে যে খোলা হৃদয়ে তৃণমূল থেকে আগত নেতাদের বিজেপিতে জায়গা দেওয়া হয়েছিলো, সেই বিষয়টি যে যুক্তিযুক্ত ছিলো না, তা কার্যত স্বীকার করে নিয়েছে বিজেপির তাবড় তাবড় নেতারা। এই পরিস্থিতিতে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ দলের বেসুরো নেতাদের উদ্দেশ্যে বলেছেন,”এক বস্তা আলু রয়েছে দলে। এর মধ্যে বেশির ভাগ আলু তরকারিতে মিশে যাবে, আর যে আলোগুলি সিদ্ধ হতে চাইছে না তারা আবার প্রত্যাবর্তন করবে।”মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপির শক্তি প্রতিহত করার জন্য এক মহাজোটের ডাক দিয়েছেন সারা দেশজুড়ে।

এই মহাজোটের পরিপ্রেক্ষিতে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন, “মুখ্যমন্ত্রী গত ২০১৯ সালেও সকলের সাথে বৈঠক সম্পন্ন করেছিলেন, ব্রিগেডে জনসভা করেছিলেন। কিন্তু তিনি সাফল্য পাননি।”

Related Articles

Back to top button