নিউজপলিটিক্সরাজ্য

মুকুলের বিরুদ্ধে লড়াই করতে ময়দানে আসীন হলেন শুভেন্দু। সাজানো হচ্ছে রণকৌশল।

নিজস্ব প্রতিবেদন: বিজেপি থেকে দীর্ঘ চার বছরের সম্পর্ক শেষ করে তৃণমূলে প্রত্যাবর্তন করেছেন মুকুল রায়। বিজেপি থেকে দাঁড়িয়ে তিনি কৃষ্ণনগর উত্তর কেন্দ্রে জয়লাভ করেছিলেন। বিধায়ক পদে আসীন হয়েছিলেন মুকুল রায়। কিন্তু ফলাফল ঘোষণা হওয়ার দেড় মাস পরেই তিনি আবার যোগ দিয়েছেন তৃণমূলে।

আর মুকুলের তৃণমূলে প্রত্যাবর্তনে হঠাৎ করেই রাজনৈতিক সমীকরণ যেন ওলট পালট হয়ে গিয়েছে বিজেপির। বিজেপি থেকে মুকুলের হাত ধরে তৃণমূলে পা বাড়িয়ে রয়েছেন বহু নেতা, কর্মীরা এমনটাই বলছেন মুকুল রায়। এদিকে মুকুল রায় কে আটকাতে রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী রাজনৈতিক লড়াইয়ের প্রাঙ্গণে উত্তীর্ণ হয়েছেন। মুকুল রায় কে রোখার জন্য নিজেদের রণকৌশল সাজাচ্ছে বিজেপি।

আরও পড়ুন-স্ত্রীকে চেন্নাইয়ের যে হাসপাতালে নিয়ে যাবেন মুকুল রায়, সেখানেই স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য রয়েছেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়।

শুভেন্দু অধিকারী আজ বিধানসভায় একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক সম্পন্ন করেছেন। দলবদলু নেতা মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার লক্ষ্যে আইনি রাস্তায় হাঁটতে চলেছে বিজেপি। বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় এর কাছে আজ দলত্যাগ বিরোধী আইন লাগু করার আবেদন জানাবে গেরুয়া শিবির। তাকে চিঠি দিয়ে মুকুল রায়ের বিধানসভার সদস্য পদ খারিজ করার আবেদন করবে বিজেপি।

আরও পড়ুন-“অতি বাড় বেড়ো না ঝড়ে পড়ে যাবে”- মুখ্যমন্ত্রীকে সরাসরি আক্রমণ করলেন শুভেন্দু অধিকারী

আজ বৈঠকে এমনটাই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী। বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী দিল্লি গিয়ে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে বলেছিলেন, “আমার নাম শুভেন্দু অধিকারী, তৃণমূলের ক্ষমতা থাকে তাহলে বিজেপির দল ভাঙিয়ে দেখাক।” এর কয়েকদিন পরেই মুকুল রায় বিজেপি থেকে তৃণমূলের প্রত্যাবর্তন করেন। মুকুল রায়ের তৃণমূলের প্রত্যাবর্তনের পর এই শুভেন্দু অধিকারী দাবি করেছিলেন যে মুকুল রায় অবিলম্বে বিজেপি বিধায়ক পদ ত্যাগ করুন।

কিন্তু মুকুল রায় জানিয়েছেন তিনি এই মুহূর্তে বিধায়ক পদ ত্যাগ করবেন না। তিনি বলেছেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ মতোই তিনি কাজ করবেন।

Related Articles

Back to top button