উত্তরবঙ্গের বঞ্চনা নিয়ে সরব হলেন শুভেন্দু অধিকারী। কি বললেন তিনি ?

উত্তরবঙ্গের বঞ্চনা নিয়ে সরব হলেন শুভেন্দু অধিকারী। কি বললেন তিনি ?

নিজস্ব প্রতিবেদন: সম্প্রতি রাজ্যের রাজনীতির আঙিনায় উত্তরবঙ্গ কে ঘিরে ব্যাপক বিতর্কের সূত্রপাত হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ক্ষমতায় আসীন হওয়ার পর থেকেই উত্তরবঙ্গের উন্নয়নে বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য পরিকল্পনা গ্রহণ করেছিলেন। এরমধ্যে বহুবার তিনি উত্তরবঙ্গ সফরে গিয়েছেন। সম্প্রতি আলিপুরদুয়ারের বিজেপি সাংসদ জন‌বারলা উত্তরবঙ্গ কে আলাদা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার জোরালো দাবি করেছেন।

তিনি কাশ্মীরের ৩৭০ ধারা বাতিল করার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলেছেন, “চিরটা কাল দক্ষিণবঙ্গ উত্তরবঙ্গের সাথে প্রতারণা করেছে। তাই অবিলম্বে উত্তরবঙ্গ আলাদা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা করা হোক। উত্তরবঙ্গ উন্নয়নের জন্য কেন্দ্র যা টাকা পাঠাচ্ছে সেই টাকা কোথায় যাচ্ছে তা কেউ জানতে পারছে না। এদিকে অসম থেকে নেপাল সীমানা বরাবর জাতীয় সড়কের পার্শ্ববর্তী এলাকাগুলিতে বাংলাদেশি রোহিঙ্গারা জবরদখল করে রয়েছে।

আরও পড়ুন-“রাজ্যের তৃণমূলের মন্ত্রীদের সাথে যোগাযোগ রাখছেন বিজেপি বিধায়ক অগ্নিমিত্রা”- উঠলো জল্পনা

মুহুর্তের মধ্যেই তাদের আধার কার্ড, রেশন কার্ড হয়ে যাচ্ছে। এদিকে উত্তরবঙ্গের বহু মানুষ রেশন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।”গত কয়েকদিন ধরেই এই ঘটনায় যথেষ্ট বিতর্ক ছড়িয়েছে। এবার এই বিতর্ক আরো উসকে দিলেন নন্দীগ্রামের বিজেপির বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারী।

এমনিতেই বর্তমানে তিনি বিরোধী দলের নেতার পদে আসীন রয়েছেন । শুভেন্দু অধিকারী বিজেপি বিধায়ক জন বারলার মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বলেছেন, “উত্তরবঙ্গ যে সারা জীবন বঞ্চিত হয়ে আসছে এ কথা ঠিক বলেছেন তিনি। তবে আমি রাজ্যকে ভাগ করার বিষয়ে কোনো রকম মন্তব্য করতে রাজি নই। উত্তরবঙ্গ যে বঞ্চিত হয়ে আসছে সেটা আমরা সকলেই দেখতে পাচ্ছি।

আরও পড়ুন-বাংলাকে দেশের সামনে অপমান করছেন রাজ্যপাল, সমালোচনা করলেন অধীর চৌধুরী।

ঠিক এভাবেই বঞ্চনা করা হয় সুন্দরবন এবং পশ্চিমাঞ্চলের বাসিন্দাদের সাথে। দক্ষিণ কলকাতার শুধুমাত্র চারটে লোক মিলে সারা রাজ্যকে যেভাবে খুশি চালাবে এটা হতে পারে না। জন বারলা উত্তরবঙ্গের বঞ্চনার প্রসঙ্গে সঠিক মন্তব্য করেছেন। কিন্তু আমি রাজ্যকে ভাগ করার প্রসঙ্গে এখন কিছু মন্তব্য করব না।”