নিউজপলিটিক্সরাজ্য

সংঘ পরিবারের কট্টর কটাক্ষের মুখে শুভেন্দু অধিকারী এবং অর্জুন সিং রা

নিজস্ব প্রতিবেদন: সংঘ পরিবারের অন্দরে অভিযোগ উঠেছে যে আরএসএসের ঘনিষ্ঠ প্রমাণ করতে গিয়ে বহুদিনের চিরাচরিত রীতি ভেঙে ফেলছেন বেশ কয়েকজন বিজেপি নেতা। যেমন সংঘের প্রতিষ্ঠাতা কেশব বলিরাম হেডগেওয়ারের জন্মদিন বা মৃত্যুদিন কখনোই আরএসএস পালন করেনি। কিন্তু বাস্তবে এই কাজ করেছেন বিজেপির বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী, বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং এবং আরো কয়েকজন বিজেপির নেতারা। ‌ এছাড়াও একটি ভাইরাল ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে যেখানে দেখা গিয়েছে সংঘের প্রার্থনা আবৃত্তি করছেন শুভেন্দু অধিকারী।

ভার্চুয়াল বৈঠকে এই ধরনের প্রার্থনা আবৃতি করা সম্ভব পরিবারের পক্ষে অমর্যাদার শামিল, এমনটাই অভিমত সংঘ কর্তাদের।রাজ্য বিজেপি শিবিরে আবার একটি বিভাজন দেখা গিয়েছে। ‌ যারা আরএসএস থেকে এসেছেন তারা সংঘ পরিবারের আদব কায়দার সাথে যথেষ্ট মানিয়ে নিতে সক্ষম হয়েছেন। ‌ কিন্তু যারা অন্য দল থেকে এসেছেন বা নবাগত বিজেপি নেতা তারা সংঘের চিরাচরিত রীতি গুলি ভাঙছেন।

আরও পড়ুন-বাজেট অধিবেশনের ভাষণ চূড়ান্ত বলে জানাল রাজ্য। এদিকে বিবেচনার আশ্বাস দিয়ে ধোঁয়াশা বৃদ্ধি করলেন রাজ্যপাল।

সংঘ কখনো ব্যক্তিপূজার বিশ্বাসী নয়, কিন্তু নবাগত নেতারা ব্যক্তিপূজায় বিশ্বাসই হচ্ছে না এটা কখনোই কাম্য নয়।আরএসএস চৈত্র শুক্ল প্রতিপদ তিথিতে বর্ষ প্রতিপদ অনুষ্ঠান পালন করে যাকে তারা হিন্দু নববর্ষ হিসেবে অভিহিত করে। ‌ তারপরেই জ্যৈষ্ঠ শুক্লা ত্রয়োদশী তিথিতে আরএসএস পালন করে হিন্দু সাম্রাজ্য দিবস। আরএসএসের এই হিন্দু সাম্রাজ্য দিবস উপলক্ষে টুইট করতে দেখা যায়নি শুভেন্দু অধিকারী অথবা অর্জুন সিং অথবা সৌমিত্রকে ।

আরও পড়ুন-“জল পড়ে পাতা নড়ে, পাগলা হাতির মাথা নাড়ে‌”- আবার রাজ্যপালকে কটাক্ষ করলেন মদন মিত্র

কিন্তু তারা সংঘের প্রতিষ্ঠাতা হেডগেওয়ারের মৃত্যুতে টুইট করে তাঁকে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানিয়েছিলেন যা সংঘের নীতিবিরুদ্ধ।যার ফলে এক বিজেপি নেতা বলেছেন, “নবাগত বিজেপি নেতারা কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে নিজেদেরকে সঠিক প্রমাণ করার জন্য সংঘের রীতি একের পর এক ভেঙে চলেছেন।”এছাড়াও আরএসএস এর বহু পুরানো প্রচারক বিজয় আঢ্য বলেছেন , “যে কোন দিবস পালন করার আগে সংঘের আদর্শ সম্পর্কে জানতে হবে। ‌ সংঘের গুরু হলো গৈরিক পতাকা।

রও পড়ুন-“ফিরহাদ হাকিম এর সাথে রবীন্দ্র মূর্তি উন্মোচন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ভুয়ো আইএএস দেবাঞ্জন”- অভিযোগ বিজেপির

‌ সংঘ যে ব্যক্তি পুজায় বিশ্বাসী নয় সেই আদর্শ মেনে চলতে হবে।” এছাড়াও শুভেন্দুর চেয়ারে বসেই প্রার্থনা করার প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন,”সংঘের নিয়ম শৃঙ্খলার যথেষ্ট গুরুত্ব রয়েছে। যারা রাজনীতিতে এসে সংঘের সাথে তারা খুব ঘনিষ্ঠ হয়েছেন এ কথা বোঝানোর চেষ্টা করে তারা নিজেরাই সংঘের রীতি ভেঙে দিচ্ছেন। সংঘের আচার-আচরণ সঠিকভাবে পালন করা আবশ্যিক পালনীয় কর্তব্য।”

Related Articles

Back to top button