গ্রাহকদের সতর্ক করল এসবিআই; এখনই ডিলিট করুন কিছু তথ্য নাহলে খালি হয়ে যাবে আপনার

গ্রাহকদের সতর্ক করল এসবিআই; এখনই ডিলিট করুন কিছু তথ্য নাহলে খালি হয়ে যাবে আপনার

নিজস্ব প্রতিবেদন:-বর্তমানের ডিজিটাল যুগে আমরা অনেকেই অনলাইন বিভিন্ন ব্যাংকিং অ্যাপ গুলি ব্যবহার করে থাকি। দ্রুত টাকা লেনদেনের উদ্দেশ্যে এই অ্যাপ্লিকেশনগুলি আমাদের খুব কাজে লেগে থাকে।যেমন কোন দূরবর্তী স্থানে গেলে এই অনলাইন অ্যাপ্লিকেশনগুলি থাকলে নগদ টাকা বহন করার প্রয়োজন পড়ে না। যার ফলস্বরূপ তা হারিয়ে যাওয়ার ভয় কম থাকে।কিন্তু সম্প্রতি এই অনলাইন ব্যাংকিং ক্ষেত্রগুলিতেও নানান ধরনের অসুবিধা দেখা দিচ্ছে গ্রাহকদের।

এর মধ্যে সর্বপ্রথম অসুবিধা হিসেবে ঘটছে নানা ধরনের প্রতারণার ঘটনা।প্রতারণা কারীরা বিভিন্নভাবে মানুষকে বোকা বানিয়ে এই অনলাইন অ্যাপ্লিকেশন গুলি থেকে খুব সহজেই বহুল পরিমাণে অর্থ আদায় করে নিচ্ছেন। সবিশেষ সতর্কতাঃ না থাকলে কখনোই আপনি এই সমস্যা থেকে মুক্ত হতে পারবেন না। এরইমধ্যে হঠাৎ করেই দিন কয়েক আগে দেশের বৃহত্তম ব্যাংক স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া তার গ্রাহকদের সতর্কবার্তা জারি করেছে। আর এই সম্পূর্ণ সতর্কবার্তা টি অনলাইন লেনদেন প্রসঙ্গত। যদি আপনি এসবিআই গ্রাহক হওয়ার পাশাপাশি অনলাইন ব্যাংকের সুবিধা নিয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই এই সতর্কবার্তা আপনার জন্য গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে।

আরও পড়ুন-“করোনার এই বাড়াবাড়ি ম্যান মেড নয়, এটা মোদী মেড ডিজাস্টার”- প্রধানমন্ত্রীকে বিঁধলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

উল্লেখ্য স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়ার নতুন জারি করা সতর্ক বিধি অনুযায়ী বলা হয়েছে নিজের অ্যাকাউন্ট সংক্রান্ত কোন তথ্য মোবাইলে সংরক্ষণ করে রাখবেন না। এতে যখন-তখন বিপদের সম্মুখীন হতে পারেন।ব্যাংকিং পিন থেকে শুরু করে ডেবিট ক্রেডিট কার্ডের তথ্য কোনো কিছুই যেন আপনার ফোনের মধ্যে না থাকে।এগুলো ছাড়াও স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার তরফে আরো বিশেষ কয়েকটি সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে।

যেখানে তার ৪৫ কোটি গ্রাহকদের উদ্দেশ্যে বলা হয়েছে যে—প্রথমত,যদি আপনি আপনার গোপন তথ্য গুলি মোবাইলের সংরক্ষণ করে রাখেন তাহলে খুব সহজেই তা ফাঁস হয়ে যেতে পারে। দ্বিতীয়ত, এটিএম কার্ড খুব সাবধানে ব্যবহার করার চেষ্টা করুন। পাসওয়ার্ড বা কোনরকম নম্বর কখনোই কারো সাথে ভাগ করবেন না। তৃতীয়ত,পাশাপাশি অনলাইন ব্যাংকিং অ্যাপ্লিকেশনগুলি ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। পাবলিক ইন্টারনেট থেকে যতটা সম্ভব দূরত্ব বজায় রাখার চেষ্টা করুন।

যদি উপরোক্ত নিয়মাবলী আপনি সঠিকভাবে না মেনে চলতে পারেন তাহলে যেকোনো মুহূর্তে আপনি অনলাইন জালিয়াতির ফাঁদে পড়তে পারেন।বিশেষত বর্তমানে করোনাভাইরাস এর দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে দেশজুড়ে বেকারত্ব এবং অর্থনৈতিক সমস্যা যার দরুন জালিয়াতির সংখ্যা অত্যধিক বেড়ে গিয়েছে।এই মুহূর্তে সাধারণ অনেক ব্যক্তিদের কাছেই উপার্জনের কোন উপায় না থাকায় বিভিন্ন ভাবে সংসার চালানোর কারণে অসহায় হয়ে এইসব জালিয়াতের কাজ করছেন অনেকে। তাই যতটা সম্ভব সর্তকতা অবলম্বন এর চেষ্টা করুন।