নিউজকলকাতাপলিটিক্সরাজ্য

রাজ্যে আর‌ও বাড়লো বিধি নিষেধ। তবে ছাড় কিছু ক্ষেত্রে।

নিজস্ব প্রতিবেদন: সারা দেশ জুড়ে ভয়াবহ সন্ত্রাস চালাচ্ছে কোভিড ১৯। এই মহামারি এখনো পর্যন্ত প্রাণ নিয়েছে কোটি কোটি মানুষের। পশ্চিমবঙ্গের বুকেও যথেষ্ট ভয়াবহ সন্ত্রাস চালাচ্ছে এই ভাইরাস । প্রতিদিনই মৃত্যু হচ্ছে অসংখ্য মানুষের। এখনো পর্যন্ত সারা দেশবাসীকে ভ্যাকসিন দেওয়া সম্ভব হয়নি। পশ্চিমবঙ্গ সরকার ঘোষণা করেছে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই যাতে সমস্ত মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া সম্ভব হয়।

ইতিমধ্যেই বহু মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়ে গিয়েছে বাংলার মাটিতে। অনেকেই ইতিমধ্যে ভ্যাকসিনের ২ টি ডোজ‌ই পেয়ে গিয়েছেন আবার অনেকেই এখনো পর্যন্ত একটামাত্র ডোজ পেয়েছেন । এখনো পর্যন্ত সারা রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৪ লক্ষ ৬১ হাজার ২৫৭ জন। মৃত্যু হয়েছে ১৭ হাজার ৬৫১ জনের। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৪ লক্ষ ২৬ হাজার ৭১০ জন। রাজ্যে আগামীকাল পর্যন্ত জারি রয়েছে বিধিনিষেধ।

এই বিধিনিষেধ আরো বাড়বে কি না তা নিয়ে আজ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন এই বিধিনিষেধ বাড়িয়ে আগামী ১ লা জুলাই পর্যন্ত করা হল। তবে ছাড় দেওয়া হয়েছে বেশ কিছু ক্ষেত্রে। তবে বিধিনিষেধ অপরিবর্তিত থাকছে নিম্নলিখিত বিষয়গুলি তে-বন্ধ থাকবে লোকাল ট্রেন, মেট্রোরেল, বিভিন্ন জলযান এবং বাস পরিষেবা ।

বন্ধ থাকবে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলি। বন্ধ থাকছে জিম, বিউটি পার্লার। রাত ৯ টা থেকে সকাল ৫ টা পর্যন্ত অত্যাবশ্যকীয় পরিষেবা ছাড়া সমস্ত কিছু যান চলাচল, দোকান বন্ধ থাকবে। এছাড়াও যেকোনো বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান অথবা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে কোনরকম ভিড় করা যাবে না। বিবাহ অনুষ্ঠান বা অন্যান্য অনুষ্ঠানে একসাথে সর্বোচ্চ ৫০ জন অতিথির আগমন হতে পারে।নিম্নলিখিত বিষয়গুলি তে ছাড় দেওয়া হয়েছে যেমন, বাজার হাট এবং খুচরো দোকানগুলি সকাল ৭ টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত খোলা থাকবে।

অন্যান্য দোকান গুলো খোলা রাখা হবে সকাল ১১ টা থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত।দুপুর ১২ টা থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত খোলা থাকবে রেস্টুরেন্ট গুলি। কিন্তু ৫০% আসন নিয়ে সেগুলি খুলতে হবে।শপিং মলের ভিতর যে খুচরা দোকান গুলি রয়েছে সেগুলি সকাল ১১ টা থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত খুলে রাখা যাবে। কিন্তু ২৫% কর্মী নিয়ে কাজ করতে হবে। ৩০% ক্রেতা দোকানে ঢুকতে পারবেন একসাথে।শুটিং শুরু করা যাবে সর্বোচ্চ ৫০ জনকে নিয়ে।

খেলাধূলা করা যাবে দর্শক ব্যাতীত।যদি দুটি ভ্যাকসিন দেওয়া থাকে তাহলে পার্কে প্রাতঃভ্রমণ করা যাবে সকাল ৬ টা থেকে সকাল ৯ টা পর্যন্ত।সমস্ত সরকারি অফিস গুলি ২৫% কর্মী নিয়ে কাজ শুরু করে দিতে পারবে।সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৪ টে পর্যন্ত বেসরকারি অফিস গুলি চালু থাকবে কিন্তু ওই অফিসগুলিতে ২৫% এর বেশী কর্মী নিয়ে কাজ করা যাবে না। এমনকি ওই কর্মীদের পরিবহনের ব্যবস্থা অফিস কর্তৃপক্ষকেই করতে হবে ।

Related Articles

Back to top button