নিউজপলিটিক্সরাজ্য

‘খেলা হবে’ দিবসের তারিখে আপত্তি জানিয়ে শুভেন্দুর সাথে গিয়ে রাজ্যপালের সাথে দেখা করলেন সনাতন নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা

নিজস্ব প্রতিবেদন: বাংলায় বিজেপির হেভিওয়েট নেতাদের একাই রুখে নিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যার দরুণ সারাদেশে তার রাজনৈতিক গুরুত্ব বহুলাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। বাংলায় তৃণমূলের জনপ্রিয় স্লোগান ছিল ‘খেলা হবে’ যা প্রতিটি মানুষের মুখে মুখে ফিরেছে একুশের ভোটে।এই স্লোগানটি বাংলা ছাড়িয়ে রাজ্যের বাইরেও মানুষের মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়েছে।

এবার ঠিক এরকমই একটি স্লোগান, ত্রিপুরার মাটিতে ঝড় তোলার জন্য তৈরী করে ফেলেছে জোড়া ফুল শিবির। আগামী ২০২৩ এর ত্রিপুরা বিধানসভা নির্বাচনে নিজেদের জয়ধ্বজা উড়িয়ে দিতে এই স্লোগানের উপর ভরসা করছে ঘাসফুল শিবির।কয়েকদিন আগে দিল্লি গিয়ে বিজেপি বিরোধী তাবড় তাবড় নেতা নেত্রীদের সাথে বৈঠক সম্পন্ন করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দেশের বহু বিজেপি বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে মোদী বিরোধী প্রধান মুখ বলে আখ্যায়িত করেছেন।

আরও পড়ুন-“আমাদের প্রত্যেকের পকেটে রয়েছে ব্লেড”- ত্রিপুরার মাটিতে বিস্ফোরক মন্তব্যের ভিডিও ভাইরাল দেবাংশুর

এদিকে আগামী ১৬ ই আগস্ট মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সারা রাজ্যে খেলা হবে দিবস পালন করার কথা ঘোষণা করেছেন। ‌ ওইদিন রাজ্যের বিভিন্ন ক্লাব গুলিকে অনুদান দেওয়া হবে এবং তাদের হাতে ফুটবল তুলে দেওয়া হবে। কিন্তু খেলা হবে দিবসের তারিখটি নিয়ে প্রথম থেকেই আপত্তি জাহির করেছে বিজেপি। বিজেপির বঙ্গ নেতারা তৃণমূলকে কটাক্ষ করে বলেছেন, ১৬ ই আগস্ট দি গ্রেট ক্যালকাটা কিলিং এর ঘটনা ঘটেছিলো, এই কুখ্যাত দিনেই তৃণমূল সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে খেলা হবে দিবস পালন করছে।

আরও পড়ুন-“বাদ দেওয়া হবে অকর্মণ্য দের। সেই জায়গায় স্থান দেওয়া হবে নতুনদের।”- বাংলার সিপিএমকে নতুনরূপে গঠন করতে চলেছেন সীতারাম ইয়েচুরি

এবার খেলা হবে দিবসের তারিখ নিয়ে যথেষ্ট আপত্তি জাহির করেছে পশ্চিমবঙ্গের সনাতন ধর্মাবলম্বী সমাজ। ‌ আজ সনাতন ধর্মাবলম্বী সমাজের বেশকিছু প্রতিনিধিরা শুভেন্দু অধিকারী কে সাথে নিয়ে রাজ্যপালের সাথে সাক্ষাৎ করেছেন রাজভবনে । রাজ্যপাল তাদের সমস্ত অভিযোগ স্বকর্ণে শুনেছেন। রাজ্যপাল টুইট করে জানিয়েছেন যে,”সনাতন ধর্মাবলম্বী সমাজের মানুষরা রাজ্যপালের সাথে আজ সাক্ষাৎ করেছেন এবং খেলা হবে দিবসের তারিখ পরিবর্তনের আবেদন জানিয়েছেন ।

কারণ এই দিনটি কুখ্যাত ডাইরেক্ট অ্যাকশন ডে এবং দ্য উইক অফ লং নাইভস এর স্মৃতিকে আবার পুনরুজ্জীবিত করেছে। রাজ্যপাল তাদের আশ্বাস দিয়েছেন যে তাদের এই অনুভুতির কথা সরকারের কাছে তুলে ধরবেন।”

Related Articles

Back to top button