করোনার দৈনিক সংক্রমণের মধ্যে রেকর্ড পতন। আশায় বুক বাঁধছেন তামাম ভারতীয়রা।

করোনার দৈনিক সংক্রমণের মধ্যে রেকর্ড পতন। আশায় বুক বাঁধছেন তামাম ভারতীয়রা।

নিজস্ব প্রতিবেদন: সারা ভারত জুড়ে ঘোর অন্ধকার সৃষ্টি করেছে এই ভয়াবহ করোনা ভাইরাস। এই ভাইরাসের শিকার হয়ে ইতিমধ্যেই বহু মানুষের প্রাণ গিয়েছে। এখনো পর্যন্ত সারা ভারতের বুকে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন মোট ২ কোটি ৮১ লক্ষ ৭৫ হাজার ৪৪ জন। মৃত্যু হয়েছে ৩ লক্ষ ৩১ হাজার ৯০৯ জনের। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২ কোটি ৫৯ লক্ষ ৪৭ হাজার ৬২৯ জন। এই মুহূর্তে সারা ভারত জুড়ে তিনটি করোনা টীকা চালু রয়েছে। কোভ্যাক্সিন, কোভিশিল্ড এবং রাশিয়ান টীকা স্পুটনিক ভি। দেশের বেশীরভাগ রাজ্যে বর্তমানে জারি রয়েছে লকডাউন।

এই পরিস্থিতিতে অনেক জায়গাতেই বন্ধ হয়ে রয়েছে কারখানা, অফিস গুলো। আর্থিক সঙ্কটে পড়েছেন অগণিত মানুষজন। বিভিন্ন রাজ্যে কড়া লকডাউনের মধ্যেও শিল্পক্ষেত্র গুলি বিভিন্ন ভাবে সচল রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে। প্রথম পর্যায়ের লকডাউন থেকেই ভারতের অর্থনীতি অনেকটাই টালমাটাল খেয়েছে। কিন্তু আনলক চালু হ‌ওয়ার পরে ভারতের অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে বলে আশা করা হচ্ছিলো। কিন্তু তারপরেই আবার দ্বিতীয় পর্যায়ের করোনার ঢেউ এসে আছড়ে পড়েছে ভারতের বুকে। তবে এবার কিছুটা আশার আলো দেখছেন চিকিৎসকরা।

আরও পড়ুন-বেহাল পরিস্থিতি দেশের আর্থিক স্বাস্থ্যের। ২০২০-২১ এ শূন্যের নীচে আর্থিক বৃদ্ধি।

গত কয়েকদিন আগে পর্যন্ত সারা ভারত জুড়ে দৈনিক আক্রান্ত হচ্ছিলেন ৪ লক্ষ মানুষজন। সেই সংখ্যাটা অনেকটাই হ্রাস পেয়ে বর্তমানে দৈনিক সংক্রমণ হচ্ছে দেড় লক্ষেরও কম। জানা গিয়েছে গত ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ১ লক্ষ ২৭ হাজার ভারতীয়। ২৪ ঘন্টায় এই ভাইরাসের প্রভাবে মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ৯৭৫ জনের। এখনো পর্যন্ত দেশে পুরোদমে টীকাকরণের উপরে জোর দেওয়া হয়েছে। কিন্তু বর্তমানে টীকার যোগানে অনেকটাই অভাব দেখা দিয়েছে। কিন্তু তার মধ্যে করোনার দৈনিক সংক্রমণ অনেকটাই হ্রাস পাওয়ায় আশার আলো দেখছেন চিকিৎসক থেকে শুরু করে বিজ্ঞানীরাও। আস্তে আস্তে পরিস্থিতি স্বাভাবিকের দিকে এগোচ্ছে বলে দাবী করছেন বিজ্ঞানীরা।