উত্তরাখন্ডের সরকারি কোভিড কিটে রামদেবের ‘করোনিল’। কটাক্ষ চিকিৎসকদের।

উত্তরাখন্ডের সরকারি কোভিড কিটে রামদেবের ‘করোনিল’। কটাক্ষ চিকিৎসকদের।

নিজস্ব প্রতিবেদন: কয়েকদিন আগেই যোগগুরু রামদেবের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল যা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিল ইন্ডিয়ান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন। এই ভিডিওতে দেখা গিয়েছিল রামদেব বলেছেন, “করোনার এই ভয়াবহ আবহে ডিসিজিআই স্বীকৃত বিভিন্ন ঔষধ গুলি যেমন ফ্যাবিফ্লু, রেমডিসিভির এগুলি ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়েছে। এমনকি এই অ্যালোপ্যাথি ওষুধ গুলো খেয়ে বহু মানুষের মৃত্যু ঘটেছে।

“এছাড়াও আইএমএ’র দাবি, যোগগুরু রামদেব স্বাস্থ্যমন্ত্রীর জ্ঞান এবং সততা নিয়ে প্রশ্ন চিহ্ন তুলে দিয়েছেন। তাই এবার আইএমএ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর প্রতি এবং অ্যালোপ্যাথিক ঔষধের প্রতি মন্তব্যের বিরোধিতা করে যোগগুরু রামদেব কে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছে।যোগগুরু রামদেব এর অ্যালোপ্যাথি বিষয়ক মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ করেছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন। এরপরেই এলোপ্যাথি প্রসঙ্গে নিজের মন্তব্য প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন যোগগুরু রামদেব।

আরও পড়ুন-“অবসরপ্রাপ্ত আমলাদের পুনর্নিয়োগের বাধ্যতামূলক হবে ভিজিল্যান্সের ছাড়পত্র।”- জারি হল নির্দেশিকা।

সেই সাথে তিনি ক্ষমা চেয়ে চিঠি পাঠিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন কে। আইএম‌এ উত্তরাখণ্ড রামদেবের বিরুদ্ধে ১০০০ কোটি টাকার মামলা দায়ের করেছে। বলা হয়েছে যে, আগামী ১৫ দিনের মধ্যে যদি রামদেব ভিডিও পোস্ট করে তাঁর মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে নিঃশর্ত ক্ষমা না চান এবং লিখিত পত্র না দেন তাহলে তাঁকে অবিলম্বে ১০০০ কোটি টাকা দিতে হবে আইএম‌এ উত্তরাখন্ডকে।এবার এই আবহের মধ্যেই উত্তরাখণ্ডের সরকারি কৈভিড কিটে দেওয়া হল রামদেবের পতঞ্জলির ‘করোনিল।’

আরও পড়ুন-মুকুল রায়ের স্ত্রীকে হাসপাতালে দেখতে গেলেন লকেট। ছিলেন না মুকুল, শুভ্রাংশু।

এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে। এই ঘটনায় উত্তরাখণ্ডের চিকিৎসক সংগঠন কর্মীদের অন্তর্ভুক্তিকরণের বিরুদ্ধে ব্যাপক প্রতিবাদ জানিয়েছেন। চিকিৎসকরা বলেছেন যে, “এই বিষয়টি হলো অ্যালোপ্যাথি এবং আয়ুর্বেদের ককটেল। এটা হল মিক্সোপ্যাথি। তাছাড়া বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই করোনিলকে অনুমোদন‌ই দেয়নি, তা সত্ত্বেও সরকারি কোভিড কিটে এই ওষুধ কিভাবে দেওয়া হচ্ছে?“এই বিষয়টি নিয়ে যথেষ্ট প্রতিবাদ জানিয়েছে আইএম‌এ উত্তরাখন্ড‌ও।