নিউজপলিটিক্সরাজ্য

জামিন পাওয়ার পরেও গ্রেপ্তার রাখাল বেরা ।‌ রাজ্যকে তীব্র ভর্ৎসনা করল কলকাতা হাইকোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদন: সরকারি চাকরি দেওয়ার নাম করে টাকা নেওয়ার অপরাধে শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ অভিযুক্ত রাখাল বেরাকে অবিলম্বে মুক্তি দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলো কলকাতা হাইকোর্ট।মানিকতলা থানায় সুজিত দে নামক এক ব্যক্তি অভিযোগ করেছিলেন যে রাখাল বেরা সরকারি চাকরি দেওয়ার নাম করে তাঁর থেকে লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এরপরেই রাখাল বেরাকে তাঁর বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়েছিলো।

সুজিত দে অভিযোগ করেছিলেন যে গত ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে মানিকতলা রোডে সাহা ইনস্টিটিউট অফ নিউক্লিয়ার ফিজিক্স এর কো অপারেটিভ হাউসিং সোসাইটি একটি ফ্ল্যাটে রাখাল বেরা সেচ বিভাগে গ্রুপ ডি তে চাকরি দেওয়ার নামে ২ লক্ষ টাকা নিয়েছিলেন সুজিত দে’র কাছ থেকে ।কিন্তু উপযুক্ত প্রমাণের অভাবে রাখাল বেরাকে মুক্তি দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল আদালত। কিন্তু জামিনে মুক্তি পাওয়ার আগেই আবার গ্রেফতার করা হলো রাখাল বেরাকে।

আরও পড়ুন-জলমগ্ন ঘাটালে পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে আজ যাচ্ছেন অভিনেতা তথা তৃণমূল সাংসদ দেব।

রাখাল বেরার আইনজীবী জানিয়েছেন যে আবার একটি পুরানো মামলার পরিপ্রেক্ষিতে রাখাল বেরাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আদালত জানতে চেয়েছে যে, কোন মামলার পরিপ্রেক্ষিতে রাখাল‌ বেরাকে আবার গ্রেফতার করা হয়েছে। গতকাল‌ই তাকে জামিন দিয়েছিলো আদালত, এবং সেইসাথে নির্দেশ দিয়েছিলো যে আদালতের অনুমতি ছাড়া রাখাল বেরাকে কখনোই গ্রেফতার করা যাবে না।

কিন্তু জানা গিয়েছে পুরানো একটি মামলার দায়ে রাখাল বেরাকে পুনরায় গ্রেফতার করা হয়েছে। এর ফলে যথেষ্ট ক্রুদ্ধ হয়েছে আদালত। রীতিমতো রাজ্যকে ভর্ৎসনা করেছে হাইকোর্ট।

আরও পড়ুন-অভিষেকের উপর হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে টুইট করতেই মুকুল রায়কে ট্রোল শুরু করলো নেটিজেনরা।

আজ‌ও এই মামলার শুনানি হতে চলেছে। রাজ্যের আইনজীবী পি চিদম্বরমকে যথেষ্ট ভর্ৎসনার মুখোমুখি হতে হয়েছে। কিন্তু তিনি রাখাল বেরার গ্রেফতারির বিষয়ে বিস্তারিত কোনো তথ্য দিতে পারেননি। আদালত জানিয়েছে আদালতের সিঙ্গেল বেঞ্চের রায়কে অবমাননা করেছে রাজ্য সরকার।

Related Articles

Back to top button