গতকাল বিকালে হঠাৎ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে হাজির হলেন প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পুত্র অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়।

গতকাল বিকালে হঠাৎ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে হাজির হলেন প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পুত্র অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে বাংলার শাসন ক্ষমতা তৃতীয়বারের জন্য হস্তগত করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। বিজেপির সম্পূর্ণ ভরাডুবি ঘটেছে। বাম সংযুক্ত মোর্চা খাতাই খুলতে পারেনি । সিপিএম, কংগ্রেস এবং আইএস‌এফের জোট জনমানসে প্রভাব ফেলতে অসমর্থ হয়েছে।

বিজেপি শিবিরে এর পরেই শুরু হয়েছে দলত্যাগের হিড়িক। ‌ বিজেপি ছেড়ে দলে দলে নেতাকর্মীরা এসে যোগ দিচ্ছেন তৃণমূলে। একুশের ভোটের আগে ঠিক এই উল্টো পরিস্থিতি দেখা গিয়েছিল তৃণমূলে। কিন্তু এবার বিজেপিতে ভাঙ্গনের চিহ্ন।

আরও পড়ুন-“নিজের বৈবাহিক জীবন নিয়ে ভুল তথ্য দিয়েছেন সাংসদ নুসরত জাহান”- বিধানসভার স্পীকারের কাছে অভিযোগ দায়ের করলেন বিজেপি সাংসদ।

সেই সাথে ভাঙ্গন দেখা গিয়েছে কংগ্রেসের অন্দরে। কংগ্রেস এবং সিপিএম থেকেও বেশ কয়েকজন নেতা কর্মীরা যোগ দিয়েছেন তৃনমূলে। বাংলায় বিপর্যয়ের জন্য প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরীর উপর দায় চাপিয়ে দিয়েছেন বহু কংগ্রেস কর্মী সমর্থকরা। যার দরুন অধীর চৌধুরী গতকাল ঘোষণা করেছেন কংগ্রেস আর আইএস‌এফের সাথে জোটে থাকবে না‌ ।

শুধুমাত্র আগামী পুরভোটে তারা সিপিএমের সাথে যুক্ত হয়ে লড়াই চালাবে।এবার বিপর্যয়ের ধাক্কা কংগ্রেস শিবিরে।গতকাল বিকালে হঠাৎ ক্যামাক স্ট্রীট অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের অফিসে হাজির হলেন প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পুত্র তথা জঙ্গিপুরের প্রাক্তন কংগ্রেস সাংসদ অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এর সাথে অনেকক্ষণ ধরে বৈঠক করেছেন তিনি।

আরও পড়ুন-নারদ মামলায় হলকনামা গ্রহণ করল না হাইকোর্ট। চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ মুখ্যমন্ত্রী।

যার ফলে রাজ্য রাজনীতিতে গাঢ় হয়েছে জল্পনা যে খুব শীঘ্রই তিনি যোগ দিতে পারেন রাজনীতিতে। বিধানসভা নির্বাচনের পরেই তৃণমূলের সাথে অনেকটাই যোগাযোগ বৃদ্ধি করেছেন অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়। প্রণব মুখোপাধ্যায় এর পুত্র অভিজিৎ এর সাথে বৈঠক করেছেন তৃণমূল কংগ্রেসের বেশ কিছু নেতারা। দীর্ঘক্ষন কথাবার্তা হয়েছে তাদের মধ্যে।

এদিকে অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় তৃণমূলের সাথে যোগাযোগ বাড়িয়ে নেওয়ায় যথেষ্ট অস্বস্তির মধ্যে পড়েছে কংগ্রেস শিবির। কিন্তু অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এর সাথে এই সাক্ষাৎকে সৌজন্যমূলক সাক্ষাৎ বলে উল্লেখ করেছেন অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়। তবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা এই সাক্ষাৎকে শুধুমাত্র সৌজন্যের বলে মেনে নিতে পারছেন না । রাজ্য রাজনীতিতে জল্পনা বৃদ্ধি পেয়েছে যে খুব শীঘ্রই তৃণমূলে নাম লেখাতে চলেছেন অভিজিৎ বাবু।