নিউজপলিটিক্সরাজ্য

তীব্র জল যন্ত্রণায় এলাকার মানুষজন। কোদাল হাতে নিজেই ড্রেন পরিষ্কার করতে নেমে পড়লেন বিজেপি নেতা।

নিজস্ব প্রতিবেদন: টানা বৃষ্টিতে বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক ভাবে জল জমে গিয়েছে। বহু এলাকাতেই জল থৈ থৈ পরিস্থিতি। হাওড়ার অন্তর্গত আমতা এবং উদয়নারায়নপুরে ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে । একই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে হুগলির অন্তর্গত খানাকুল এবং গোঘাটে।

গত বুধবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হাওড়া আমতা এবং উদয়নারায়নপুরে বন্যা পরিস্থিতি সরজমিনে খতিয়ে দেখতে গিয়েছিলেন। তবে এই প্রতিকূল আবহাওয়ার দরুন তিনি হুগলির খানাকুল এবং গোঘাটে যেতে পারেননি। তবে আজ এই অঞ্চলগুলিতে মুখ্যমন্ত্রী পা রাখতে পারেন বলে জানা গিয়েছে। ‌ এই আবহের মধ্যে একটি মানবিক দৃষ্টিভঙ্গির পরিচয় দিয়েছেন এক বিজেপি নেতা যার নাম হল অশোক কীর্তনীয়া ।‌

আরও পড়ুন-“পরিযায়ী শ্রমিকরা বাংলায় একটি বৃহৎ সমস্যা”- মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে থেকে নবান্ন থেকে বললেন অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়

অশোক বাবু বনগাঁ উত্তরের বিজেপি বিধায়ক।জানা গিয়েছে বনগাঁয় ব্যাপক বৃষ্টিতে বিভিন্ন জায়গায় প্রায় হাঁটু সমান জল দাঁড়িয়ে গিয়েছে। এলাকার নিকাশী ব্যবস্থা যথেষ্ট খারাপ হ‌ওয়ায় জল নিষ্কাশন প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছিলো।এই আবহের মধ্যে বিভিন্ন নিকাশী নর্দমা গুলিতে বৃষ্টির জমা জল বেরোনোর পথে অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছিলো ব্যাপক পরিমাণে আটকে থাকা জঞ্জাল।

এই সময়েই গতকাল বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করতে গিয়েছিলেন বনগাঁ উত্তরের বিজেপি বিধায়ক অশোক কীর্তনীয়া। তখন‌ই তিনি ওই এলাকায় পৌঁছে ড্রেনের বেহাল দশা লক্ষ্য করেন। এবং তাঁকে ঘিরে এলাকাবাসী অভিযোগ জানাতে‌ থাকেন যে ড্রেনের সংস্কার না হ‌ওয়াতে আরো বিপজ্জনক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে এলাকাবাসীর যন্ত্রণার কথা শুনে থাকতে না পেরে নিজেই ড্রেন পরিষ্কারে কর্মীদের নিয়ে হাত লাগাতে শুরু করে দিয়েছেন অশোক কীর্তনীয়া।

আরও পড়ুন-“বন্যা পরিস্থিতির জন্য দায়ী নয় ডিভিসি”- এবার বন্যা পরিস্থিতিতে মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখলেন শুভেন্দু অধিকারী

তাঁর এই মানবিক দিকের ছবি ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপক পরিমাণে শেয়ার হয়ে চলেছে।বনগাঁ পুরসভার অন্তর্গত ৮ নম্বর ওয়ার্ডে ড্রেনের এই পরিস্থিতি দেখতে পেয়েছিলেন অশোক বাবু। তখনই তিনি উপস্থিত স্থানীয় মানুষের কাছ থেকে কোদাল চেয়ে নিজেই এই ড্রেন পরিষ্কার করার কাজে লেগে পড়েন। ‌ এই মর্মে অশোকবাবু বলেছেন,”নিয়মিত এই ড্রেন গুলি পুরসভা কিছুতেই পরিষ্কার করছে না ।

যার জন্য নর্দমার চারদিকে বৃষ্টির জল জমে রয়েছে, সেই সাথে মশা, মাছি , পোকা মাকড় বাহিত রোগ গুলি এই পরিস্থিতিতে মানবশরীরকে কাবু করে ফেলছে।”এই মর্মে বিধায়ক অশোক কীর্তনীয়া বলেছেন, “গত ১১ বছর ধরে বনগাঁ পৌরসভার দখল নিয়েছে তৃণমূল । কিন্তু প্রকৃতপক্ষে দেখা যাচ্ছে এই ১১ বছরে এখনো পর্যন্ত নিকাশী ব্যবস্থার সমাধান করা হয়নি। যার জন্য এলাকাবাসীকে জল যন্ত্রণা থেকে মুক্তি দেওয়ার জন্য আমি আপ্রাণ চেষ্টা করছি।”

আরও পড়ুন-“ত্রিপুরায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে”- বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করল তৃণমূল।

এদিকে বিজেপি বিধায়ক অশোক কীর্তনীয়ার এই রাজনৈতিক কর্মসূচির কাজকে কটাক্ষ করেছেন বনগাঁ পুর প্রশাসক। তিনি বলেছেন যে,”পুরসভার কর্মীরা জঞ্জাল পরিষ্কার করার কাজ এতদিন ধরে করে এসেছেন। তারা নিজেদের দায়িত্ব নিজেরা বোঝেন। মাঝখানে রাজনৈতিক ফায়দা তোলার জন্য বিজেপি নেতা মাত্র কিছুক্ষণ ড্রেনের উপর কোদাল চালিয়েছেন।”

Related Articles

Back to top button