নিউজ

সচেতন হচ্ছে মানুষ। এন্টালিতে বেশিরভাগ মানুষকেই দেখা গেল মাস্ক পরিধান করতে।

নিজস্ব প্রতিবেদন: সারা ভারত জুড়ে প্রবল সন্ত্রাস সৃষ্টি করেছে করোনার দ্বিতীয় পর্যায়ের ঢেউ। এখনো পর্যন্ত বহু মানুষ এই ভাইরাসের কবলে পড়ে প্রাণ হারিয়েছেন। নিজের পরিবারের সদস্যদের হারিয়ে বাকরুদ্ধ হয়ে গিয়েছেন বহু মানুষ। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বারবার প্রতিটি মানুষকে অনুরোধ করছেন এই মহামারীর আবহে অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করতে এবং নির্দিষ্ট শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাফেরা করতে।

এছাড়াও বারবার স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে অনুরোধ করা হচ্ছে সমস্ত মানুষকে। সম্মিলিতভাবে মানুষের সচেতনতা গড়ে উঠলে অচিরেই এই ভয়াবহ মহামারী উপর লাগাম টানা যাবে এমনটাই মনে করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু অনেক জায়গাতেই মানুষজন করোনা বিধিকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে বহাল তবিয়তে ঘুরে বেড়াচ্ছেন , যার ফলে আরো সংক্রমণ বাড়ছে করোনার। বাংলায় করোনার শৃঙ্খল কে ভাঙার জন্য সাময়িক পর্যায়ের লকডাউন করেছে রাজ্য প্রশাসন।

আরও পড়ুন-৬ ঘন্টা ধরে ফ্ল্যাটেই বন্দী করোনা রোগীর মৃতদেহ। দরজা ভেঙে উদ্ধার করলো পুলিশ।

রাজ্য প্রশাসন জানিয়েছে গতকাল শুক্রবার থেকেই বাংলার দোকান বাজার গুলি খোলা থাকবে সকাল ৭ টা থেকে ১০ টা এবং দুপুর ৩ টে থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত। অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ থাকছে স্পা থেকে শুরু করে বিউটি পার্লার, জিম, সুইমিং পুল, শপিং মল, সিনেমা এবং দোকান বাজার। তবে ছাড় দেওয়া হয়েছে অনলাইন পরিষেবা এবং হোম ডেলিভারি সহ ওষুধ এবং মুদিখানার দোকানকে।আস্তে আস্তে জনসচেতনতা বাড়ছে রাজ্যবাসীর মধ্যে।

এন্টালিতে দেখা গিয়েছে , মাস্ক সকলেই পরে রয়েছেন । তবে বাজারে দেখা গিয়েছে প্রচুর ভীড় রয়েছে , এই ভীড়ে শারীরিক দূরত্ব বিধি বজায় রাখাটা কিছুতেই সম্ভবপর নয়। এক ব্যাক্তি জানিয়েছেন যে, সকাল ৭ টা থেকে সকাল ১০ টা পর্যন্ত বাজার খোলা রাখায় আরো ভীড় বেড়েছে। এই সময়টা ১২ টা পর্যন্ত করলে এতটা ভীড় হতনা। এদিকে বেশ কিছু বাজারে দোকানদাররা জানিয়েছেন মাস্ক না পড়লে তারা কাউকে মাল বিক্রি করবেন না। এক কথায় অনেকটাই সচেতনতা ছড়িয়ে পড়ছে মানুষের মধ্যে।

Related Articles

Back to top button