নিউজ

স্টেশনে কমলালেবু বিক্রেতা থেকে চারশো কোটির মালিক । করোনা রোগীদের জন্য দান করেছেন ৮৫ লক্ষ টাকার অক্সিজেন।

নিজস্ব প্রতিবেদন: সারা ভারত জুড়ে ভয়াবহ পরিবেশ সৃষ্টি করেছে করোনা ভাইরাস।এই ভাইরাসের প্রভাবে একের পর এক প্রাণ যাচ্ছে অগুনতি মানুষের। ছাড়া ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে দেখা দিয়েছে অক্সিজেনের চরম সংকট। এই পরিস্থিতিতে এগিয়ে এসেছে ভারতের প্রতিবেশী দেশ সহ অন্যান্য দেশ গুলি। অনেক দেশ ভারতকে অক্সিজেন, মাস্ক, পিপিই কিট, এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সরঞ্জাম দিয়ে সাহায্য করেছে।

দেশের অভ্যন্তরে ও বহু মানুষ সাহায্য করে চলেছেন করোনা রোগীদের কল্যাণার্থে। এমনই একজন মানুষের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে চিনি এক সময় স্টেশনে কমলা লেবু বিক্রি করে সংসার চালিয়েছেন কিন্তু বর্তমানে তিনি ৪০০ কোটি টাকা ব্যবসার মালিক। তিনি করোনা রোগীদের অক্সিজেনের এই সংকটকালে দান করেছেন ৮৫ লক্ষ টাকার তরল অক্সিজেন।এই মানবিক মানুষটির নাম হল প্যায়ারে খান। তাঁর জীবন সংগ্রাম শুরু হয়েছিল স্টেশনে কমলা লেবু বিক্রি থেকে। তাঁরা চার ভাইবোন। মা অন্য জায়গায় কাজ করতেন। সারাদিন স্টেশনে বসে কমলালেবু বিক্রি করতেন চার ভাইবোন মিলে।

সন্ধ্যায় কাছ থেকে ফেরার পথে ছেলেমেয়েদের নিয়ে বাড়ী ফিরতেন তাদের মা। প্রত্যহ চলত দারিদ্র্যের সাথে তুমুল লড়াই। নাগপুরের একটি বস্তিতে জন্ম তাঁর। ১৯৯৫ সালের পর থেকেই তিনি কমলালেবু বিক্রি করতে শুরু করেছিলেন। নাগপুর রেলস্টেশনে তিনি কমলা লেবু বিক্রি করতেন। ১৮ বছর বয়সে তিনি একটি কুরিয়ার সংস্থায় গাড়ি চালানোর কাজ পেয়েছিলেন কিন্তু দুর্ঘটনার কবলে পড়ে কাজ হারিয়ে ছিলেন তিনি। তারপরে এই লড়াকু ব্যক্তি অটো চালাতে শুরু করেন।

আরও পড়ুন-রেল কর্মীদের তৎপরতায় স্টেশনে জন্মগ্রহণ কন্যা সন্তানের। মানবিক ভারতীয় রেল।

সংগীতের প্রতি ঝোঁক থাকায় কি বোর্ড বাজানোও শিখে নেন। প্রথম থেকেই ব্যবসায়িক বুদ্ধি ছিল তাঁর। একটি ব্যাঙ্ক থেকে প্রায় ১১ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে একটি ট্রাক কেনেন তিনি। আস্তে আস্তে সাফল্য পান এই ব্যবসায়। দু’বছরের মধ্যে ঋণ পরিশোধ করে আরো ট্রাক কেনেন প্যায়ারে খান। বর্তমানে তাঁর কাছে ১২৫ টি ট্রাক রয়েছে, এছাড়াও ৩ হাজার ট্রাক তিনি ভাড়া নিয়েছেন। সারা দেশের প্রায় ১০ টি অঞ্চলে রয়েছে তার অফিস। বর্তমানে ৪০০ কোটি টাকার মালিক তিনি।

কিন্তু কোটিপতি হওয়া সত্বেও দুঃস্থ মানুষদের কল্যাণার্থে নিয়মিত দান ধ্যান করেন প্যায়ারে খান। তিনি এই ভয়াবহ অক্সিজেনের সঙ্কটকালে প্রায় ৪০০ মেট্রিক টন তরল অক্সিজেন দিয়ে সহায়তা করেছেন প্রশাসনকে। প্রায় ৮৫ লক্ষ টাকার অক্সিজেন তিনি নাগপুরের বিভিন্ন হাসপাতালে পৌঁছে দিয়েছেন।

এছাড়াও নাগপুরের বাইরে তিনি অক্সিজেন পৌঁছে দিয়েছেন। করোনা রোগীর আজ এখানে অক্সিজেনের অভাবে ছটফট করে মারা যাচ্ছে সেখানে নিজেকে কিছুতেই সান্ত্বনা দেওয়ার ভাষা খুঁজে পাননি প্যায়ারে খান। তিনি প্রথম থেকেই পাশে দাঁড়িয়েছেন অসহায় মানুষদের সাহায্যার্থে। প্যায়ারে খানের এই মানবিক মুখের প্রশংসা করেছেন আপামর দেশবাসী।

Related Articles

Back to top button