নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“কৃষকদের কল্যাণে কালজয়ী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আমাদের নেত্রী”- মুখ্যমন্ত্রীর প্রশস্তি করলেন মুকুল রায়

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে জয়জয়কার তৃণমূলের। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, মুখ্যমন্ত্রীর বাংলার মানুষের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন প্রচার সভা থেকে দেওয়া জনমোহিনী প্রতিশ্রুতি গুলি এবারে তৃণমূলকে জয়ের মুখ দেখতে অনেকটাই অনুকূল পরিস্থিতি এনে দিয়েছে। এই প্রতিশ্রুতির মধ্যে অন্যতম ছিলো ‘কৃষক বন্ধু’ প্রকল্প।এই প্রকল্পের আওতায় এবার কৃষকদের দেওয়া হবে ১০ হাজার টাকা।

ছয়মাস অন্তর কৃষকরা পাবেন ৫ হাজার টাকা করে। জানা গিয়েছে গতকাল বৃহস্পতিবার থেকেই জেলায় জেলায় কৃষকদের এই ভাতা প্রদান করা হবে। ‌ খেতমজুর এবং বর্গাদারদের ভাতা বৃদ্ধি করে ৪ হাজার টাকা করা হয়েছে।গতকাল সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, “পূর্বেই এই প্রকল্পের আওতায় চাষীদের আসতে গেলে জমির নথিপত্র দেখানো বাধ্যতামূলক ছিল।

আরও পড়ুন-“এখনই চালু করা যাবেনা গণপরিবহন। গাড়ির ব্যবস্থা করেই খুলতে হবে অফিস।”- জানালেন ফিরহাদ হাকিম

‌ কিন্তু এখন হলফনামা পেশ করলেই এই ভাতা পেতে পারেন কৃষকরা।”এবার বিজেপি থেকে তৃণমূলে প্রত্যাবর্তন করা মুকুল রায় এই কৃষক বন্ধু প্রকল্পের পরিপ্রেক্ষিতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভূয়সী প্রশংসা করলেন। কৃষ্ণনগর উত্তর এর বিজেপি বিধায়ক তথা বর্তমান তৃণমূল নেতা মুকুল রায় টুইটারে লিখেছেন,”মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অতুলনীয় নেতৃত্বে আবার চালু হয়েছে কৃষক বন্ধু প্রকল্প। কৃষকদের বার্ষিক আর্থিক সহযোগিতা দ্বিগুণ করে দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার।

আরও পড়ুন-সরকারি অনুষ্ঠানে অনুব্রত মন্ডলের পায়ে হাত দিয়ে প্রণাম করলেন আউশগ্রামের বিডিও।

বাংলার কৃষকদের কল্যাণার্থেই এটা নিঃসন্দেহে একটি কালজয়ী সিদ্ধান্ত বলে বিবেচিত হয়েছে ।”এই মুকুল রায় বিজেপিতে থাকাকালীন প্রধানমন্ত্রীর কিষাণ সম্মান নিধি প্রকল্প বাংলায় চালু না হওয়ার জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে আক্রমণ করেছিলেন।

Related Articles

Back to top button