নিউজদেশপলিটিক্স

“বিরোধীদের কন্ঠরোধ করা হচ্ছে।”- সংসদে বললেন রাহুল গান্ধী।

নিজস্ব প্রতিবেদন: লোকসভার বাদল অধিবেশনে গতকাল‌ও কৃষি আইন, পেগাসাস ইস্যু নিয়ে যথেষ্ট বিক্ষোভ দেখিয়েছেন কংগ্রেস সাংসদরা। গতকাল লোকসভা এবং রাজ্যসভা দুটিতেই কংগ্রেস সাংসদরা ব্যাপক হট্টগোল জুড়ে দিয়েছিলেন।লোকসভার বাদল অধিবেশনের প্রথম থেকেই বিজেপির বিরোধী দলগুলি যথেষ্ট হৈচৈ করে এসেছেন বিভিন্ন ইস্যুকে কেন্দ্র করে কেন্দ্রীয় সরকারের উপর চাপ সৃষ্টি করার জন্য। বিশেষ করে তৃণমূল এবং কংগ্রেসের সাংসদরা যথেষ্ট বিক্ষোভ দেখিয়েছেন।

মূলত পেগাসাস, কৃষি আইন প্রত্যাহার, করোনার মোকাবিলা প্রভৃতি বিষয় গুলিকে কেন্দ্র করে যথেষ্ট বিক্ষোভ দেখিয়েছে বিরোধী দলের সাংসদরা। এমনিতেই প্রথম থেকেই সংসদে ব্যাপক বিক্ষোভ দেখানোর কর্মসূচি গ্রহণ করেছিলো বিজেপির বিরোধী দলগুলি।গতকাল সাংবাদিক বৈঠকে কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধী বলেছেন, “ভারতের সব বিরোধী দলের প্রতিনিধিরা আমাদের সাথে উপস্থিত রয়েছেন। সংসদে কেন্দ্রীয় সরকার বিরোধীদের কণ্ঠরোধ করার প্রচেষ্টা করে চলেছে।

আরও পড়ুন-“সোনিয়া গান্ধীর সাথে বৈঠকে ইতিবাচক ফল মিলেছে”- কংগ্রেসের সাথে জোটের আভাস দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

‌ আমরা শুধুমাত্র একটাই প্রশ্ন করছি যে, এই পেগাসাস অস্ত্রটি গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানের উপর ব্যবহৃত হয়েছে, এর জবাব হ্যাঁ অথবা না বলে দিয়ে দিক কেন্দ্র। আমরা মূল্যবৃদ্ধি, কৃষি আইন প্রত্যাহার এবং পেগাসাস ইস্যুতে কোনোরকম সমঝোতা করবো না। এদিকে কেন্দ্রীয় সরকার স্পষ্টভাবে নির্দেশ দিয়েছে যে পেগাসাস ইস্যুতে সংসদে নাকি কোনরকম আলোচনা করা যাবে না ।‌ ভারতের তামাম যুবসমাজকে আমি বলছি যে প্রধানমন্ত্রী তাদের ফোনে এমন একটি অস্ত্র প্রয়োগ করেছেন যার মাধ্যমে তাদের সমস্ত হাল হকিকতের খবর পেয়ে যাবে কেন্দ্রীয় সরকার।

আরও পড়ুন-দিল্লিতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাথে দেখা করলেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল

‌ এই পেগাসাসের মাধ্যমে সাংবাদিক থেকে শুরু করে নেতা-মন্ত্রী, বিচারক সকলের তথ্য সংগ্রহ করে নিচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার। আমরা সংসদে এই বিষয়ে সরব হয়েছি । আগামী দিনেও হব।”গতকাল কংগ্রেস সহ ১৪ টি বিজেপি বিরোধী দল সংসদে বৈঠকে বসেছিলো।

এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন অধীর রঞ্জন চৌধুরী, মল্লিকার্জুন খারগে সহ অন্যান্যরা। সিপিএম, আপ, শিবসেনার সাংসদরাও এই বৈঠকে যোগদান করেছিলেন।

Related Articles

Back to top button