নিউজপলিটিক্স

লালমাটির রাঙাধূলায় আমার মন ভুলায় রে…, বাঁকুড়ায় জনসভায় বললেন নরেন্দ্র মোদি!

নিজস্ব প্রতিবেদন: নির্বাচনী প্রাক্কালে এদিন বাঁকুড়ায় প্রচারকাজে এসেছিলেন নরেন্দ্র মোদি। বাংলায় মানুষের সাথে জনসংযোগের কাজে এদিন মোদিকে দেখা গেল সম্পূর্ণ অন্য রূপে। বাংলার লালমাটির রাঙা ধুলায়

Advertisement
নিজেকে অনেকটাই মিশিয়ে ফেললেন দেশের প্রধানমন্ত্রী। তবে এই আবেগের মাঝেও শাসক দলকে উদ্দেশ্য করে আক্রমণ করতে ছাড়েননি বিজেপির এই প্রবীণ নেতা।

এদিন বাঁকুড়ার এক জনসভায় অংশগ্রহণ করে মোদি বলেন,”লোকসভা ভোটের সময় বাঁকুড়ায় দিদি কী করেছিলেন মনে আছে। এখানকার মানুষদের ভয় দেখাতে সব করেছিলেন দিদি। দিদির হুমকি উপেক্ষা করেই বিজেপিকে ভোট দিয়েছিল বাঁকুড়ার মানুষ। বাংলার মানুষ ঠিক করে নিয়েছে, ২ মে দিদি যাচ্ছেন”।এরপরেই তৃণমূলের দুর্নীতি প্রসঙ্গে মোদি বলেন,”ও দিদি দুর্নীতির খেলা আর চলবে না। দিদি সিন্ডিকেট, কাটমানির খেলা শেষ হবে। বিজেপি ক্ষমতায় এলে মায়ের পুজো হবে, মানুষের সম্মান হবে”।

Advertisement

আরও পড়ুন – “ওই দিলীপ গরুর দুধ থেকে সোনা দেবেন, আর তাতে সোনার বাংলা হবে”, ভরা সভায় কটাক্ষ অভিষেকের!

শেষে তৃণমূলের দেওয়াল লিখনকে কেন্দ্র করে আঘাত হানা শুরু করেন নরেন্দ্র মোদি।বলেন,”তৃণমূল কর্মীরা ছবি আঁকছেন আমার মাথায় লাঠি মারছেন দিদি। এটাই কি বাংলার সংস্কৃতি? দিদি চাইলে আপনার পা আমার মাথায় রাখতেই পারেন।কিন্তু বাংলার উন্নয়নকে লাথি মারতে আমি দেব না। গরিব মানুষের পেটে লাঠি মারতে দেব না।বাংলার সরকারকে জলপ্রকল্পের জন্য কোটি কোটি টাকা দিয়েছি।

Advertisement

কিন্তু মানুষ প্রশ্ন করছেন, জল কোথায় দিদি? কেন কৃষকরা ক্ষেতে জল পান না? কোথায় শিল্প, কোথায় কর্মসংস্থান দিদি? সেই জন্যই আপনি বলছেন খেলা হবে!১০ বছর ধরে বাংলার মানুষের সঙ্গে খেলেও আপনার মন ভরেনি! এবার বাংলার মানুষ ঠিক করে নিয়েছেন। আপনার খেলা শেষ হবে, উন্নয়ন শুরু হবে”।শেষে অনেকটা মজার ছলেই প্রধানমন্ত্রী বলেন,”আমি প্রশ্ন করলেই দিদির রাগ হয়। আমার চেহারাও দিদি পছন্দ করেন না। গণতন্ত্রে চেহারা নয়, কাজ জরুরি”।

Advertisement

Related Articles

Back to top button