নিউজপলিটিক্স

উলুবেড়িয়ায় তৃণমূল নেতার বাড়িতে উদ্ধার একাধিক ইভিএম, “জানতাম না ওটা তৃণমূল নেতার বাড়ি,”- সাফাই সেক্টর অফিসারের।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে যথেষ্ট টানটান উত্তেজনা রয়েছে বাংলার রাজনৈতিক স্তরে। আজ রাজ্যে নির্বাচনের তৃতীয় দফা শুরু হয়ে গিয়েছে। নির্বাচন কমিশন প্রথম থেকেই তৎপর নির্বাচনকে ঘিরে যাতে রাজ্যের কোথাও কোন রকম ঝামেলা অশান্তি না সৃষ্টি হয়।‌ এবারের ভোটে ব্যাপক সংখ্যায় আধাসেনা নিয়োগ করেছে নির্বাচন কমিশন। স্পর্শকাতর বুথ গুলিতে দ্বিগুণ পরিমাণে আধাসেনা রাখা হয়েছে।

Advertisement

বিশেষ করে নন্দীগ্রামে এবারের দ্বিতীয় দফার ভোটে মোট ২২ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন ছিলো। রাজ্যে শান্তি-শৃঙ্খলা ভোটের আবহে শান্তিপূর্ণ রাখা নির্বাচন কমিশনের অন্যতম লক্ষ্য। কিন্তু নির্বাচন কমিশনের প্রচেষ্টা সত্ত্বেও রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বিক্ষিপ্ত অশান্তির ঘটনা সামনে এসেছে। ‌ এছাড়া ভোট কর্মীদের গাফিলতির কিছু অভিযোগ সামনে এসেছে। ‌এরকমই এক অভিযোগকে ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে উলুবেড়িয়া উত্তরের তুলসীবেড়িয়া।

Advertisement

আরও পড়ুন-“জয়া বচ্চন কে স্বাগত, কিন্তু অরূপ বিশ্বাসের কীর্তি শুনলে আর আসতেন না উনি।”- বললেন বাবুল সুপ্রিয়

ওই এলাকায় তৃণমূল নেতা গৌতম ঘোষের বাড়ি থেকে গতকাল রাতে বেশ কয়েকটি ইভিএম পাওয়া গিয়েছে। এই ঘটনায় রীতিমতো চাঞ্চল্য পড়ে গিয়েছে এলাকায়।গতরাতে খবর পাওয়া মাত্রই স্থানীয় মানুষজন ওই তৃণমূল নেতার বাড়ি ঘেরাও করেন। তার বাড়িতে বেশ কয়েকটি ইভিএম পাওয়া যায়। সাথে সাথে সেক্টর অফিসার এবং গৌতম ঘোষ কে আটকে রেখে পুলিশে খবর দেয় স্থানীয় বাসিন্দারা।

Advertisement

পুলিশ এবং কেন্দ্রীয় বাহিনী এসে উদ্ধার করে ওই ইভিএম এবং ভিভিপ্যাট মেশিন গুলি। সেক্টর অফিসার তপন কুমার সরকার কে এই ঘটনায় শোকজ করা হয়েছে। ওই সেক্টর অফিসার বলেছেন, “আমি রাত দুটোর সময় কাজ শেষ করেছি, তখন কোথাও থাকার জায়গা পাইনি। তখন আমার অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্টর অফিসার বলেছিলেন যে তার কোন জানাশোনা ব্যক্তির বাড়ি রয়েছে এখানে, সেখানে রাতে থাকা যেতে পারে । তাই আমি এখানে রাতে শুধুমাত্র থাকতে এসেছিলাম। আমি অন্যায় করেছি। কিন্তু কখনো জানতে পারিনি এই বাড়িটা তৃণমূল নেতার। তবে এই ইভিএম গুলো রিজার্ভ থাকবে। এখন ব্যবহার হবেনা এগুলোর। “

Advertisement

Related Articles

Back to top button