নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“মুকুলের শরীরটা খারাপ হয়ে যাচ্ছিলো। ও শান্তি পেলো।”- বললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

নিজস্ব প্রতিবেদন: বিজেপির সাথে চার বছরের সম্পর্ক ছিন্ন করে আনুষ্ঠানিক ভাবে তৃণমূলে যোগদান করেছেন মুকুল রায়। পদ্মফুল শিবিরের সাথে বিগত চার বছরের সম্পর্কের ইতি টেনে তৃণমূলে ফিরেছেন মুকুল রায়। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় মুকুল রায়ের গলায় তৃণমূলের উত্তরীয় পরিয়ে দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে তাঁকে তৃণমূলে যোগদান করিয়েছেন। মুকুল রায়কে একহাত নিয়ে টুইট করে সৌমিত্র খাঁ লিখেছেন,”বাংলায় মীরজাফরের জন্য আজ বিজেপির এই অবস্থা হয়েছে।

উনারা তাড়াতাড়ি চলে গেলে দলের পক্ষে মঙ্গল। আমরা যেমন বিজেপির সৈনিক হয়ে ছিলাম ভবিষ্যতেও ঠিক এভাবেই দলে থাকবো। কোন বেইমান গদ্দার আমাদের এই লড়াই করার মানসিকতাকে কখনোই ভেঙে দিতে পারবে না।”এদিকে পুরানো দলে ফিরেই আবার স্বমহিমায় ফিরে এসেছেন মুকুল রায়।

আরও পড়ুন-“গোয়ালের গরু দড়ি ছিঁড়ে পালিয়ে গিয়েছিল , আবার বাঁধা হয়েছে।”- মুকুল রায়ের তৃণমূলে প্রত্যাবর্তনে বললেন অনুব্রত মণ্ডল।

তিনি কেন বিজেপি ছেড়েছেন, সেই বিষয়ে তিনি পরে লিখিতভাবে জানাবেন বলে জানিয়েছেন মুকুল বাবু। গতকাল তৃণমূল ভবনে ঢুকেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে দেখে প্রণাম করেছেন মুকুল রায়। মুকুল পুত্র শুভ্রাংশু রায় মুখ্যমন্ত্রীর পায়ে হাত দিয়ে প্রণাম করেন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুকুল রায়কে পরামর্শ দিয়েছেন কাঁচরাপাড়া ছেড়ে আবার সল্টলেকের বাড়িতে সকলকে নিয়ে থাকতে।

আরও পড়ুন-“মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে উনি সব সময়ই শ্রদ্ধা করতেন”- মুকুল রায়ের প্রত্যাবর্তন প্রসঙ্গে বললেন আরামবাগের তৃণমূল সাংসদ অপরূপা পোদ্দার

গতকাল বিকেল ৪:৩০ নাগাদ সাংবাদিক সম্মেলনে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, “মুকুল আমাদের পরিবারের ছেলে। কেন্দ্রীয় সরকার ওকে ধমক দিয়ে এজেন্সির দ্বারা ভয় দেখিয়ে অত্যাচার করেছে। যার জন্য কখনোই মানসিক শান্তি পায়নি। একটা কথাই বলবো বিজেপি করা যায় না।

বিজেপিতে যারা রয়েছেন তাঁরা মনুষ্যত্ব নিয়ে বাঁচতে পারেন না। মুকুলের শরীরটা খারাপ হয়ে যাচ্ছিলো । কিন্তু ও কখনোই কিছু বলতে পারেনি। মুকুল নিজেও মানসিক শান্তি পেয়েছে।

আরও পড়ুন-মুকুল ফিরতেই জমে উঠলো সেই পুরানো আড্ডা। আলুভাজা, চিপস্ দিয়ে মুড়ি মাখলেন মুখ্যমন্ত্রী।

আমাদের দল এমনিতেই শক্তিশালী হয়ে উঠেছে। আমরা অনেক ভোটে জয় পেয়েছি।”

Related Articles

Back to top button