নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“মুকুল রায়কে কেন্দ্রীয় এজেন্সি দিয়ে ভয় দেখানো হয়েছিল”- তৃণমূলের প্রত্যাবর্তন করেই বিজেপির বিরুদ্ধে সরব মুকুল পুত্র শুভ্রাংশু

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটের পর থেকে উত্তপ্ত ছিল রাজ্য রাজনীতি। এবার আগুনে ঘি পড়ল মুকুল রায়ের আবার তৃণমূলে প্রত্যাবর্তনে। এমনিতেই কয়েকদিন ধরে বেসুরো হয়ে উঠেছিলেন মুকুল রায়, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। অনেকদিন ধরেই বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের সাথে ঠান্ডা লড়াই জারি ছিল মুকুল রায়ের ।

এমনিতেই একুশের ভোটে যথেষ্ট সক্রিয় দেখা যায়নি মুকুল রায় কে। ততটা জনসভা এবং রোড শো তিনি করেননি। এছাড়াও সচরাচর শুভেন্দু অধিকারীর মত মুকুল রায় কে কখনই দেখা যায়নি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করতে। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, একুশের ভোটের কয়েক মাস আগেই বিজেপিতে যোগদান করা শুভেন্দু অধিকারীকে বিরোধী দলনেতা বানানোর জন্যই নাকি যথেষ্ট অসন্তুষ্ট হয়েছেন মুকুল রায়।

আরও পড়ুন-“কেন্দ্রের জিএসটির বৈঠকে রাজ্যের কোন কথাই শোনা হয়নি।”- অভিযোগ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

অবশেষে গত সপ্তাহে শুক্রবার তিনি পুত্র শুভ্রাংশু রায় কে নিয়ে ফিরেছেন তৃণমূলে। আর তৃণমূলে প্রত্যাবর্তন করেই বিজেপির বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছেন শুভ্রাংশু রায়। এর আগে গত শুক্রবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, “কেন্দ্রীয় এজেন্সি দিয়ে মুকুল রায়কে ভয় দেখানো হয়েছিল। বিজেপিতে মানসিক চাপে ছিলেন মুকুল রায়।”

ঠিক একই অভিযোগ করেছেন মুকুল পুত্র শুভ্রাংশু। তিনি বলেছেন, “বাবার উপর মানসিক চাপ দেওয়া হয়েছিল। মানসিক চাপ দিলে শরীর কিভাবে ভেঙে যায় তা আমি নিজে প্রত্যক্ষ করেছি। কেন্দ্রীয় এজেন্সি দিয়ে বারবার চাপ দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন-দলে ফিরেই নতুন দায়িত্বে আসীন হতে চলেছেন মুকুল রায়।

মাননীয়া তৃণমূল নেত্রী সবকিছুই জানেন। ভোটের আগে বাবা খুব বিমর্ষ হয়ে পড়েছিলেন। আমাকে বলেছিলেন যে তুই জিততে পারবি তো ? সেরকমভাবে প্রচারে বেরোয়নি বাবা। বিজেপিতে কিছুতেই মানিয়ে নিতে পারেননি।

এখনো বিজেপির অন্ততঃ ৩০ জন বিধায়ক, দুইজন সাংসদ তৃণমূলে যোগদান করতে পারেন। আগামী ভবিষ্যতে এই সংখ্যাটা আরো বৃদ্ধি পাবে। সকলেই চাইছেন তৃণমূল নেত্রী আগামী দিনে ভারত শাসন করুন।”

Related Articles

Back to top button