নিউজটেক নিউজরাজ্য

বানভাসি বাঁকুড়ার পাশে গিয়ে দাঁড়ালেন বিধায়ক চন্দনা বাউড়ি

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে যেখানে গ্ল্যামার মুখের জয়জয়কার সর্বত্র। সেখানে এক হতদরিদ্র পরিবারের ছাপোষা গৃহবধূ সকলের নজর কেড়েছেন। শালতোড়ার বিজেপি প্রার্থী চন্দনা বাউড়িকে ঢেলে ভোট দিয়ে জিতিয়েছেন শালতোড়ার মানুষজন। নুন আনতে পান্তা ফুরোয় সংসারে সংগ্রাম করেও চন্দনা বাউড়ির স্বপ্ন ছিলো তিনি সমাজের কল্যাণে কিছু করবেন।

সুযো‌গ‌ও ধরা দিয়েছে তাঁর কাছে। শালতোড়ার বিজেপি বিধায়ক তিনি। তাঁকে ঘিরে এলাকাবাসীর বহু আশা-আকাঙ্ক্ষা জড়িয়ে রয়েছে। দরিদ্র এই গৃহবধূ নানা প্রতিকূলতার মধ্যে দাঁড়িয়েও তাঁর এলাকার মানুষের কল্যাণার্থে সক্রিয় ভূমিকা পালন করছেন। বিধায়ক পদে আসীন হয়েই তিনি ব্রতী হয়েছেন এলাকার জল সংকট দূর করার জন্য , খারাপ রাস্তা মেরামত করার জন্য, নতুন রাস্তা তৈরি করার জন্য, এলাকায় স্কুল তৈরি করার জন্য।

আরও পড়ুন-প্রকাশিত হল জয়েন্ট এন্ট্রান্সের ফলাফল। প্রথম রহড়া রামকৃষ্ণ মিশনের ছাত্র

এছাড়াও চরম দারিদ্র্যের মধ্যেও তিনি তার দেহরক্ষী অর্থাৎ কেন্দ্রীয় বাহিনীর জ‌ওয়ানদের নিজেই রান্না করে খাইয়েছিলেন।এবার বাঁকুড়ার বানভাসি মানুষের জন্য কোমর বেঁধে বন্যার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আসীন হলেন চন্দনা বাউড়ি। অবিরাম বৃষ্টি তে বাঁকুড়ার বহু এলাকায় বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। ‌ এই পরিস্থিতিতে বানভাসি বাঁকুড়ার বেশ কয়েকটি এলাকায় গিয়েছিলেন চন্দনা বাউড়ি।

আরও পড়ুন-“উপনির্বাচনে স্বমহিমায় ফিরবে বিজেপি”- মুকুল রায়ের বেফাঁস মন্তব্যের ভিডিও ভাইরাল

তিনি তাঁর কেন্দ্রে বন্যা দূর্গত মানুষের সাথে কথা বলেছেন।এর পরেই তিনি দীর্ঘদিন ধরে বেহাল পড়ে থাকা মেজিয়া মন্ডলের রামচন্দ্রপুর ব্রিজ পরিদর্শনে গিয়েছিলেন । তিনি এই ব্রিজটির বেহাল পরিস্থিতি নিয়ে যথেষ্ট অভিযোগ করেছেন। চন্দনা অভিযোগ করেছেন যে, “এই ব্রিজটি বহুদিন ধরে বেহাল পরিস্থিতিতে রয়েছে।

আরও পড়ুন-সংসদ উন্নয়ন তহবিল থেকে বরাদ্দের ঘোষণা করলেন বাবুল সুপ্রিয়।

এই ব্রিজটি দিয়ে অন্তত ১০ টি গ্রামের মানুষ চলাফেরা করেন। কিন্তু এই ব্রিজটির এই বেহাল পরিস্থিতিতে যে কোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। বিডিও তে গ্রামবাসীরা বারবার আবেদন জানিয়ে এই ব্রিজটি এখনো মেরামত করা হয়নি।”কঠিন দুঃসময়ে চন্দনাকে পাশে পেয়ে যথেষ্ট আশ্বস্ত হয়েছেন বন্যাদূর্গত এলাকাবাসী।

Related Articles

Back to top button