নিউজপলিটিক্সরাজ্য

নির্বাচনী প্রচারে উস্কানিমূলক মন্তব্যের দরুণ মিঠুনকে ভার্চুয়ালি জিজ্ঞাসাবাদ করলো মানিকতলা থানা।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটকে পাখির চোখ করে বাংলার মাটিতে নিজেদের একচ্ছত্র ক্ষমতা বলবৎ করার উদ্দেশ্যে সর্বশক্তি দিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল বিজেপি। বাংলায় রাজনৈতিক পালাবদলের ইঙ্গিত পেয়ে দলে দলে বেশ কয়েকজন তৃণমূলের তাবড় তাবড় নেতা নেত্রীরা নাম লিখিয়েছিলেন বিজেপিতে। তাঁদের মধ্যে অন্যতম হলেন মহাগুরু মিঠুন চক্রবর্তী। তিনি এবারের একুশের ভোটে ব্যাপক ভাবে জনসভা করেছেন, রোড শো করেছেন।

ব্রিগেডের মাঠে বিজেপির পতাকা হাতে তুলে নিয়ে তিনি তাঁর অভিনীত সিনেমার বেশকিছু চোখা চোখা ডায়লগ দিয়ে অগণিত বিজেপি কর্মী সমর্থকদের মন জিতে নিয়েছিলেন। কিন্তু তার অভিনীত সিনেমার বেশ কিছু ডায়লগ নির্বাচনী আবহে হিংসাত্মক পরিস্থিতিতে ইন্ধন যুগিয়েছে এই অভিযোগে মানিকতলা থানায় উত্তর কলকাতার যুব তৃনমূলের পক্ষ থেকে এফআইআর দায়ের করা হয়েছিলো মিঠুন চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে। উত্তর কলকাতার তৃণমূল যুব সংগঠন দাবি করেছে, ‘মারব এখানে লাশ পড়বে শ্মশানে’ এই ডায়লগটি ব্রিগেডের মাঠে বলেছিলেন মিঠুন চক্রবর্তী। কিন্তু এই ডায়লগ টা শোনার পর থেকেই বাংলার চারদিকে হিংসাত্মক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

আরও পড়ুন-শিশির অধিকারীকে নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন দিলীপ ঘোষ।

এই অভিযোগে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে মহাগুরুর নামে। তবে আদালত নির্দেশিকা জারি করেছে যে মিঠুন চক্রবর্তীকে সশরীরে থানায় হাজির হওয়ার কোন দরকার নেই। পুলিশকর্মীরা ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে মিঠুন চক্রবর্তীকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারেন। কলকাতা পুলিশকে মিঠুন যেন তদন্তে সমস্ত রকমের সহযোগীতা করেন, এমনটাই নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট।

আরও পড়ুন-“শ্রীরামকে নিয়ে প্রথম পাঠ হল সত্যি কথা বলা, যেটা রাহুল গান্ধী কখনোই করেননি।”- রাহুলকে আক্রমণ করলেন যোগী আদিত্যনাথ।

এই মর্মে আজ মিঠুন চক্রবর্তীকে ভার্চুয়ালি জিজ্ঞাসাবাদ করেছে মানিকতলা থানা। ১০:২০ নাগাদ পুণে থেকে থানার তদন্তকারী অফিসারদের সাথে কথা বলেছেন মিঠুন চক্রবর্তী। জানা গিয়েছে মিঠুন চক্রবর্তীকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য প্রায় ১৫ টি প্রশ্নমালা তৈরি রাখা হয়েছিল। ৪৫ মিনিট ধরে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন থানার অতিরিক্ত ওসি এবং একজন ইন্সপেক্টর।

আরও পড়ুন-পাঁচ রাজ্যে ভোটের প্রস্তুতি শুরু করে দিল বিজেপি

আজ সকাল ১০ টায় থানায় হাজিরা হ‌ওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিলো মিঠুন চক্রবর্তীকে। ভারতীয় দন্ডবিধির ১৫২এ, ৫০৪, ৫০৬ , ৩৪ আইপিসি ধারায় মামলা করা হয়েছিলো মিঠুনের বিরুদ্ধে।

Related Articles

Back to top button