নিউজপলিটিক্স

সেপ্টেম্বরের শেষে হয়তো উপনির্বাচন। ভবানীপুরে প্রস্তুতি নিচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেস।

নিজস্ব প্রতিবেদন: সেপ্টেম্বরের শেষেই হয়তো রাজ্যের মাটিতে হতে চলেছে উপনির্বাচন। এই উপলক্ষে গত শনিবার সন্ধ্যায় কালীঘাটের জয় হিন্দ ভবনে একটি কর্মী সভা সম্পন্ন হয়েছে। উক্ত সভায় নির্দেশিকা দেওয়া হয়েছে যে, “করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতির দরুন এই উপ-নির্বাচনে কোন বড় সমাবেশ অথবা মিছিল করা যাবে না তাই ভবানীপুরের যারা ভোটার রয়েছেন তাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে কর্মীদের প্রচার করা বাধ্যতামূলক।

ভবানীপুরের মানুষদের কাছে বিধায়ক হিসেবে কি কি পরিষেবা মুখ্যমন্ত্রী পৌঁছে দিয়েছেন সেই বিষয়টি সম্পর্কে ভোটারদের অবশ্যই অবগত করতে হবে।” একুশের বিধানসভা ভোটে ভবানীপুরের প্রার্থী পদে আসীন হয়েছিলেন তৃণমূলকে কৃষি মন্ত্রী শোভন দেব চট্টোপাধ্যায়। বিপুল ভোটে জয়লাভ করলেও তিনি গত ২১ শে মে তার বিধায়ক পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন।

তার কারণ সকলেই অনুমান করছেন সে এই ভবানীপুর আসন থেকেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রার্থী পদে উপ-নির্বাচনে লড়াই করবেন। তার কারণ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভবানীপুর কেন্দ্র থেকেই উপনির্বাচনে লড়াই করবেন। তিনি এর আগেই নির্বাচন কমিশনকে অনুরোধ করেছিলেন যে এক‌ সপ্তাহ সময় দিয়ে উপনির্বাচন করালেই হবে। তিনি আগেই জানিয়েছিলেন যে ‘বর্তমানে রাজ্যে করোনা পরিস্থিতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে এসে গিয়েছে।

আরও পড়ুন –আফগানিস্তান প্রেসিডেন্সিয়াল প্যালেসের দখল নিল তালিবান গোষ্ঠী।

এই আবহে কোভিড বিধি মেনে উপনির্বাচন করানো যেতে পারে।’ এদিকে নির্বাচন কমিশন আভাস দিয়েছে যে আগামী সেপ্টেম্বরের শেষে রাজ্যে উপনির্বাচন সম্পন্ন হতে পারে। তাই এবার তৃণমূলের শীর্ষ নেতারা উপনির্বাচনের প্রস্তুতিতে যথেষ্ট সক্রিয় হয়ে উঠেছেন। তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেছেন, “৮ দফা বিধানসভা ভোটের সময় রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি যথেষ্ট উদ্বেগজনক ছিলো।

বর্তমান পরিস্থিতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তাই পরিসংখ্যান দিয়ে আমরা জানিয়েছিলাম দ্রুত উপনির্বাচন করানোর জন্য। রাজ্যে এখন কোভিড বিধি মেনে উপনির্বাচন করানো যেতে পারে।” রাজ্যে এখনও পর্যন্ত সাতটি বিধানসভা কেন্দ্রে নির্বাচন হবে। এরমধ্যে জঙ্গিপুর এবং সামশেরগঞ্জে পুনরায় নির্বাচন হবে । কারণ ওই দুটি আসনে প্রার্থীদের মৃত্যুর কারণে ভোট বাতিল হয়ে গিয়েছিল।

আরও পড়ুন –আজ থেকেই খুলে দেওয়া হচ্ছে পুরীর জগন্নাথ মন্দিরের দরজা।

দিনহাটা এবং শান্তিপুরের বিধায়ক পদ ত্যাগ করেছেন নিশীথ প্রামানিক এবং জগন্নাথ সরকার এছাড়াও ভোটের ফল ঘোষণার আগে করোনা সংক্রমণে প্রাণ গিয়েছে খড়দহের তৃণমূল প্রার্থী কাজল সিংহ, এবং গোসাবার তৃণমূল বিধায়ক জয়ন্ত নস্করের। এছাড়াও শোভন দেব চট্টোপাধ্যায় ভবানীপুর বিধানসভা কেন্দ্র থেকে পদত্যাগ পত্র জমা দিয়েছেন তাই, এই সমস্ত কেন্দ্রগুলিতে উপনির্বাচন হতে চলেছে। ভবানীপুরের উপনির্বাচন কে ঘিরে যথেষ্ট সক্রিয় হয়ে রয়েছে তৃণমূল নেতৃত্বরা।

Related Articles

Back to top button