ভাটপাড়ায় বিজেপি নেতার বাড়ি লক্ষ্য করে ব্যাপক বোমাবাজি। অভিযোগ তৃণমূলের দিকে।

ভাটপাড়ায় বিজেপি নেতার বাড়ি লক্ষ্য করে ব্যাপক বোমাবাজি। অভিযোগ তৃণমূলের দিকে।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটের পরেই অত্যন্ত উত্তপ্ত পরিস্থিতি রাজ্যে। ‌ তৃণমূল এবং বিজেপির কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে হিংসা হানাহানির ঘটনা ঘটছে সর্বত্র। ‌ প্রথম দফার ভোটে শান্তি বিরাজ করলে অনেকেই আশ্বস্ত হয়েছিলেন যে এবারে হয়তো শান্তিপূর্ণ পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে সম্পন্ন হবে বিধানসভা ভোট। কিন্তু সকলের এই চিন্তাভাবনাকে ভুল প্রমাণ করে দ্বিতীয় দফার প্রারম্ভ থেকেই শুরু হয়ে গিয়েছে রাজ্যজুড়ে যথেষ্ট ঝামেলা অশান্তি।

নন্দীগ্রামে প্রাণ গিয়েছে কয়েকজন মানুষের। কোচবিহারের শীতলকুচি তে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে মারা গিয়েছেন ৪ তৃণমূল সমর্থক। এছাড়াও ভোটের পরবর্তী সময়ে রাজ্যের বিভিন্ন মিটিং-মিছিল, জনসভা, রোড শো থেকে বিচ্ছিন্ন গন্ডগোলের খবর পাওয়া যাচ্ছে। উন্মত্ত পশুর মতো একে অপরের সাথে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ছে রাজনৈতিক দলের অনুগামীরা। গণতন্ত্রকে পিষে মারা হচ্ছে পায়ের তলায়।

আরও পড়ুন-মদ্যপান করে বন্ধুর সাথে ঝগড়া। নেতাজিনগরে বন্ধ ঘরে পাওয়া গেল তরুণীর ঝুলন্ত দেহ।

ভোট পরবর্তী সময়ে যেন মানুষ আর‌ও মানুষের প্রধান শত্রুরূপে প্রতীয়মান হচ্ছে।এই পরিস্থিতিতে আবার বোমাবাজির অভিযোগ উঠল ভাটপাড়ায়। এমনিতেই বারবার বিভিন্ন রাজনৈতিক অশান্তির দরুন শিরোনামে থাকে অর্জুন সিং এর গড় ভাটপাড়া। এবার সেই ভাটপাড়াতেই বিজেপি নেতার বাড়ি লক্ষ্য করে বোমাবাজি এবং বাড়ির ভাড়াটিয়াদের মারধর করার অভিযোগ উঠল তৃণমূল সমর্থকদের বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন-স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের ভিত্তিতে করোনা রোগীদের চিকিৎসা করতে নারাজ বহু হাসপাতাল।

ওই বিজেপি নেতার গৌরাঙ্গ সরকারের পরিবারের লোকজন অভিযোগ করেছে যে, গতকাল মঙ্গলবার রাত প্রায় ১২ টা নাগাদ তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা বেশ কয়েকটি বোমা ছোঁড়ে গৌরাঙ্গ সরকারের বাড়ি লক্ষ্য করে। তারপরই বাড়ির একতলায় থাকা ভাড়াটিয়াদের মারধর করে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা।তবে এই সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছে স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব। ঘটনাস্থলে গিয়েছে ভাটপাড়া থানার পুলিশ। এলাকাজুড়ে টহল দিচ্ছে পুলিশের দল।