নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“ত্রিপুরায় মারলে বাংলায় চিকিৎসা হবে, কিন্তু ওখানে নাও হতে পারে”- বিজেপিকে হুঁশিয়ারি দিলেন তৃণমূল নেতা মদন মিত্র

নিজস্ব প্রতিবেদন: ত্রিপুরার মাটিতে যথেষ্ট উত্তপ্ত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। গত শনিবার আক্রান্ত হয়েছিলেন দেবাংশু ভট্টাচার্য, সুদীপ রাহা, জয়া দত্ত সহ তৃণমূলের কর্মী সমর্থকরা। ত্রিপুরার মাটিতে তাঁরা বিজেপি কর্মী সমর্থকদের হাতে আক্রান্ত হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছিলেন।এমনিতেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আগেই ঘোষণা করেছেন যে আগামী ২০২৩ ত্রিপুরা বিধানসভা নির্বাচনে ত্রিপুরার মাটিতে লড়াই করতে চলেছে তৃণমূল কংগ্রেস।

সেই লক্ষ্যে তৃণমূলের নেতারা ত্রিপুরার মাটিতে গিয়েছিলেন। সেখানেই দেবাংশু দের উপরে হামলা হয়। তারপরে এই হামলার পরিপ্রেক্ষিতে দেবাংশু ভট্টাচার্যরা বিক্ষোভ দেখালে দেবাংশু, সুদীপ, জয়া সহ মোট ১৪ জনকে গ্রেফতার করে খোয়াই থানার পুলিশ। তারপরে তাদের চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে তোলা হয় সেখানে তারা ৫০ হাজার টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে জামিন পান । আহত তৃণমূল নেতা নেত্রীদের নিয়ে কলকাতায় প্রত্যাবর্তন করেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন-“রাজীবকে বহিষ্কার করার খবর ভুয়ো”- জানালো রাজ্য বিজেপি

কলকাতায় এসে এস‌এসকেএমে ভর্তি করা হয় দেবাংশু, জয়া এবং সুদীপ দের । দেবাংশুকে প্রাথমিক চিকিৎসার পরেই ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।এদিকে এই ঘটনায় সারা রাজ্য জুড়ে রীতিমতো চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের উপরে দোষারোপ করে বলেছেন যে, তাঁর অঙ্গুলিহেলনে বিপ্লব দেবের সরকার এই কাণ্ড করেছে।

এবার ত্রিপুরা কান্ডে সোচ্চার হলেন রাজ্যের প্রাক্তন পরিবহনমন্ত্রী তথা বর্তমান কামারহাটির তৃণমূল বিধায়ক মদন মিত্র। তিনি গতকাল এস‌এসকেএম হাসপাতাল চত্বর থেকে বিজেপির বিরুদ্ধে আক্রমণ শানিয়ে বলেছেন,”আমাদের দলের কোটি কোটি কর্মীরা তৈরি রয়েছে, শুধু শীর্ষ নেতৃত্বের নির্দেশ পেলেই হবে। আজ মুখ্যমন্ত্রী এখানে এসেছিলেন। তিনি সুদীপ, জয়া’দের দেখে গিয়েছেন।

আরও পড়ুন-“বিমানে গুন্ডা তুলে অভিষেককে খুনের পরিকল্পনা করা হয়েছে।”- অভিযোগ মুখ্যমন্ত্রীর

বাংলার তৃণমূল কর্মীরা মার খেলে তাঁদের ব্যাক‌আপ রয়েছে, কিন্তু ত্রিপুরার বিজেপি কর্মীরা মার খেলে তাদের কোনো ব্যাক আপ নেই। তাদেরকে ছুটতে হবে মায়ানমার। আমাদের বাচ্চা ছেলেগুলো ত্রিপুরা যেতেই ত্রিপুরার তামাম ফোর্সকে রাস্তায় নামতে হল। আর ওরা তো কেন্দ্র থেকে হেভিওয়েট নেতাদের পাঠিয়েছিলো, তাদের চাল এখানে সাকসেসফুল হয়নি।”

Related Articles

Back to top button