‘মমতার বিরুদ্ধে প্রচার বন্ধ করে দিয়ে মামলা দায়ের করা উচিত’; দাবি করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ!

‘মমতার বিরুদ্ধে প্রচার বন্ধ করে দিয়ে মামলা দায়ের করা উচিত’; দাবি করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ!

নিজস্ব প্রতিবেদন:-প্রথম, দ্বিতীয় এবং তৃতীয় দফার নির্বাচন সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন হওয়ার পর চতুর্থ দফার নির্বাচনের ক্ষেত্রেও অনেকটা তেমনই আশা করেছিল কমিশন। কিন্তু মানুষ ভাবে এক, আর হয় এক।চতুর্থ দফার নির্বাচনের শুরুতেই সকাল থেকে বিক্ষিপ্ত অশান্তি দেখা গিয়েছিল কোচবিহার এবং হাওড়ায়। বেলা বাড়ার সাথে সাথেই এইসব অঞ্চলে অস্থির পরিস্থিতি চরমে পৌঁছায়।

শেষ পর্যন্ত কোচবিহারের শীতলকুচি এলাকায় স্থানীয় বাসিন্দাদের সাথে জওয়ানদের বিরোধ সৃষ্টি হলে বাহিনীর জওয়ানরা গুলি চালাতে বাধ্য হয়। এলোপাথাড়ি গুলি চলার ফলে কেরল থেকে বাংলায় ভোট দিতে আসা চারজন যুবকের মৃত্যু ঘটে। এটিকে তৃণমূলের রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র বলে দাবি করা হলেও জানা যায়, ওই চার যুবক ছিলেন সম্পূর্ণরূপেই কেরলে কর্মরত।স্থানীয় রাজনীতির সাথে তাদের কোনরকম ভাবেই যোগসাজশ ছিল না।

আরও পড়ুন-‘শীতলকুচিতে অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক গণহত্যার ঘটনা ঘটেছে’;দাবি তৃণমূল সুপ্রিমোর!

এমতাবস্থায় হঠাৎ করেই কেন কেন্দ্রীয় বাহিনী তাদের উপর গুলি চালনা করলো তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। যদিও বাহিনীর তরফে জানানো হয়েছে, স্থানীয় গ্রামবাসীদের মধ্যে প্রায় 300—400 জন জওয়ানদের ঘেরাও করে অস্ত্র ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছিল। সেই পরিস্থিতিতে আর কোন উপায় না দেখে তারা গুলি চালাতে বাধ্য হয়েছিলেন।এদিন রবিবার শীতলকুচি কাণ্ডে হঠাৎ করেই তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করে বসেন দিলীপ ঘোষ।

প্রসঙ্গত এই ঘটনায় অমিত শাহকে দায়ী করেছিলেন মমতা। মমতার সেই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে এদিন বিজেপির রাজ্য সভাপতি বলেন,”উনি পাপ করছেন, অন্যায় করছেন। মানুষকে উস্কে দিচ্ছেন। ওনার প্রচার বন্ধ করে দেওয়া উচিত। মমতার বিরুদ্ধে মামলা করা উচিত।যেমন ভেবেছিলাম তেমনটাই হয়েছে চতুর্থ দফার নির্বাচন”।তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নির্বাচন কমিশনকে এই ঘটনায় পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করলে দিলীপ বাবু বলেন,”ওনার কথা না শুনলেই সে বিজেপি হয়ে যাবে। পুলিশও এখন বিজেপি হয়ে গেছে”। প্রসঙ্গত এদিন এক বার্তায় নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে 72 ঘন্টা নিষেধাজ্ঞা জারির মাধ্যমে তথ্য লুকানোর কথা বলেছেন মমতা।