নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“চর্বি ঝরে গেলে শরীরের উপকার হয়।”- দলবদলুদের একহাত নিলেন দিলীপ ঘোষ।

নিজস্ব প্রতিবেদন: গত শুক্রবার বিজেপি ছেড়ে আবার তৃণমূলে ফিরেছেন মুকুল রায়। জল্পনা চলছিলো অনেকদিন থেকেই। গত ২০১৭ তে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে নাম লিখিয়েছিলেন মুকুল রায় । কিন্তু তাঁকে বিজেপিতে কখনোই অতি সক্রিয় ভাবে দেখা যায়নি।

এছাড়াও একুশের ভোট প্রচারেও তাঁর উপস্থিতি ততটা সক্রিয়ভাবে দেখা যায়নি। এছাড়াও অনেক আগে থেকেই মুকুল রায়ের বেসুরো মনোভাব নজর এড়ায়নি কারোর‌ই। অবশেষে সমস্ত জল্পনা সত্যি করে তৃণমূলে ফিরেছেন মুকুল রায়। বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ তৃণমূলে মুকুল রায়ের প্রত্যাবর্তন এর পরিপ্রেক্ষিতে বেশ কিছু মন্তব্য করেছিলেন।

আরও পড়ুন-মাতৃহারা পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বাড়িতে সমবেদনা জানাতে গেলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়

শুভেন্দু অধিকারী দলত্যাগী নেতদের জন্য নতুন নিয়ম লাগু করার কথা বলেছিলেন। বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ গত শনিবার মুকুল রায়কে কটাক্ষ করে একটি টুইট করেছেন। এই টুইটে তিনি লিখেছেন,”দল ছাড়াটা এখন অনেকের অভ্যাসে পরিণত হয়ে গিয়েছে। বিজেপি সেই সমস্ত লোকদের উপর নির্ভর করে যারা রক্ত দিয়ে, ঘাম ঝরিয়ে দলকে দাঁড় করিয়েছে।

আরও পড়ুন-“দলত্যাগ বিরোধী আইন খুব শীঘ্রই লাগু করবো।”- হুঁশিয়ারি দিলেন শুভেন্দু অধিকারী।

বিজেপিতে থাকতে হলে ত্যাগ-তপস্যা করতে হবে। যারা শুধুমাত্র ক্ষমতা ভোগ করতে চান, তারা বিজেপিতে থাকতে পারবেন না, আমরাই রাখবো না।”এছাড়া আজ‌ও একটি টুইটে দিলীপ ঘোষ মুকুল‌ রায়কে কটাক্ষ করে বলেছেন, “শরীরে হঠাৎ চর্বির উদয় হলে শরীর দেখতে খুব স্থূলকায় লাগে। কিন্তু এই চর্বি শরীরের পক্ষে খুবই ক্ষতিকর।

‌ ঠিক এ রকমই পরিস্থিতি হয়েছে বিজেপির ক্ষেত্রে। বিজেপির এই অতিরিক্ত চর্বি ঝরে গেলে শরীরের ভালো হবে।”এছাড়াও দলবদলুদের আবার বিজেপিতে স্থান দেওয়া হবে কি না, সেই বিষয়েও কেন্দ্রীয় কমিটির দিকেই অঙ্গুলি প্রদর্শন করেছেন দিলীপ ঘোষ।

Related Articles

Back to top button