“সংখ্যালঘুদের পা চাটছেন।”- রোজা রাখায় তীব্র কটাক্ষ ভাস্বরকে।

“সংখ্যালঘুদের পা চাটছেন।”- রোজা রাখায় তীব্র কটাক্ষ ভাস্বরকে।

নিজস্ব প্রতিবেদন: হিন্দু মুসলিম সম্প্রীতি জন্য বহুদিন থেকে সচেষ্ট হয়ে আসছেন কবি-সাহিত্যিক থেকে শুরু করে সাধারন মানুষের অনেকেই। কবি নজরুল ইসলাম তাঁর সৃষ্ট বিখ্যাত কবিতায় লিখেছিলেন , ‘মোরা এক‌ই বৃন্তে দুইটি কুসুম হিন্দু মুসলমান।’ভারতের বহু শিল্পীরা তাদের শিল্প সৃষ্টির মাধ্যমে হিন্দু মুসলিম ঐক্যকে তুলে ধরেছেন।

এ রকমই একজন শিল্পী হলেন টলিউড অভিনেতা ভাস্বর চট্টোপাধ্যায় । সম্প্রতি তিনি জানিয়েছিলেন যে হিন্দু-মুসলিম ঐক্যের আবহকে ফিরিয়ে আনার জন্য এই প্রথম রোজা রাখছেন তিনি। তিনি বলেছিলেন, “সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিতে বহু মানুষ আছেন যারা মুসলিম, তারা দিনের পর দিন রোজা রেখে কষ্ট করে কাজ করেন, তাদেরকে আমি ভালোবাসা জানালাম, এছাড়া কাশ্মীর বাসীদের আমি এই রোজা উৎসর্গ করলাম।”

আরও পড়ুন-“শঙ্খ ঘোষ একজন ভালো কবি ছিলেন। সারা বাংলা মর্মাহত।” -শঙ্খ ঘোষের প্রয়াণে শোকবার্তা দিলেন অনুব্রত মন্ডল

অভিনেতা ভাস্বর চট্টোপাধ্যায় এর এই মন্তব্য প্রকাশিত হতেই নেট দুনিয়ায় প্রবল কটাক্ষের মুখে পড়েছেন তিনি। উগ্র হিন্দুত্ববাদী থেকে শুরু করে কয়েকজন সাধারণ নাগরিকের ক্ষোভের মুখে পড়েছেন তিনি। অনেকেই তাঁকে কটাক্ষ করে বলেছেন, হিন্দু ব্রাহ্মণ হয়ে রোজা রাখছেন, গরুর মাংস খাচ্ছেন, সংখ্যালঘুদের পা চাটছেন।

তবে এই বিষয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় উত্তর দিয়েছেন ভাস্বর চট্টোপাধ্যায়। তিনি বলেছেন, “অনেকেই বলছে যে আমি মুসলিম হয়ে গিয়েছি, গরুর মাংস খাচ্ছি, আমাদের পূর্বপুরুষ নাকি বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে এসেছেন এ দেশে, কিন্তু আমি বলতে চাই আমরা পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা, বাংলাদেশ আমাদের কেউ ছিলনা। আমি গরু খাই নি, সম্প্রীতির বার্তা তুলে ধরতে আমি রোজা রেখেছি, এটা সম্পূর্ণ আমার ব্যক্তিগত অধিকার। রোজা রাখা মানে কারুর পা চাটা হতে পারে না। আমার বাড়িতে দুর্গা পুজো হয়, আমি ওই পূজাতেও চারদিন উপোস করি। ভ্রান্ত ধারণা অনেক ক্ষতি করে দেয়।”