এটিএম জালিয়াতি কান্ডে ৪ জনকে গ্রেফতার করলো কলকাতা পুলিশ।

এটিএম জালিয়াতি কান্ডে ৪ জনকে গ্রেফতার করলো কলকাতা পুলিশ।

নিজস্ব প্রতিবেদন: গত সপ্তাহে মঙ্গলবার কলকাতার বুকে ঘটে গিয়েছে এক অত্যন্ত চাঞ্চল্যকর ঘটনা । উন্নত প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে কলকাতার বিভিন্ন এটিএম থেকে লুঠ হয়েছে কোটি কোটি টাকা। এই ঘটনায় কার্যত হতভম্ব কলকাতা পুলিশের তাবড় তাবড় সাইবার বিশেষজ্ঞ রাও।জানা গিয়েছে তুখোড় প্রযুক্তি সম্পন্ন একদল জালিয়াত এই ঘটনার সাথে যুক্ত রয়েছে।

গোয়েন্দারা এই এটিএম অ্যাটাককে হাইলি সোফিস্টিকেটেড অ্যাটাক বলে অভিহিত করেছেন। এমনভাবেই টাকা লুঠ করা হয়েছে যে এটিএমের গায়ে একটুও চিহ্ন পাওয়া যায়নি, যার ফলে কোনো তথ্যপ্রমাণ হাতে আসেনি ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞ দের। করোনার এই লকডাউনে কার্যত নিরাপত্তা বিহীন ১০ টি এটিএম থেকে লুঠ হয়েছে প্রায় ২ কোটি টাকা। কলকাতার বেহালা থেকে শুরু করে নিউমার্কেট, বেনিয়াপুকুর, ফুলবাগান, কাশীপুর, ব‌উবাজার, যাদবপুরের বেশ কয়েকটি এটিএমে এই চুরির ঘটনা ঘটেছে।

আরও পড়ুন-মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা সম্পর্কে জনসাধারণের মতামত প্রার্থনা মুখ্যমন্ত্রীর।

ইতিমধ্যেই এক‌ই ধরণের ঘটনায় ফরিদাবাদে একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিলো। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে যে এই চুরির সাথে ফরিদাবাদের কোনো চক্র যুক্ত রয়েছে কি না। ভিনরাজ্যে পাড়ি দিয়েছে কলকাতা পুলিশের তিনটি দল। অপরাধীরা কোন হোটেল অথবা গেস্ট হাউসে আশ্রয় নিয়েছিল সেখানকার সিসিটিভি ফুটেজ জোগাড় করেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন-মাসিক ৫ হাজার টাকা ভাতা, বিনামূল্যে রেশনের দাবীতে ব্যাপক বিক্ষোভ দেখালো রোহিঙ্গারা।

এখনো পর্যন্ত জানা গিয়েছে এই ঘটনায় ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সুরাত থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে দুইজনকে । বাকি দজনকে কলকাতা থেকেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সুরাত থেকে পুলিশের হাতে ধরা পড়েছে মনোজ গুপ্তা এবং নবীন গুপ্তা।

আরও পড়ুন-এলপিজি ব্যবহারকারীদের জন্য এলো বিশেষ সুখবর। পাওয়া যাবে এই বিশেষ সুবিধা গুলি।

কলকাতা থেকে ধরা পড়েছে আবদুল স‌ঈফুল মন্ডল এবং বিশ্বজিৎ রাউত। ধৃত ব্যাক্তিদের কাছ থেকে পাওয়া গিয়েছে বেশ কয়েকটি ডেবিট কার্ড এবং নানান অত্যাধুনিক ইলেকট্রনিক ডিভাইস। সুরাত থেকে ধৃত দুইজনকে খুব শীঘ্রই নিয়ে আসা হবে কলকাতায়। তাদেরকে জেরা করে জানা হবে যে আর কে কে জড়িত রয়েছে তাদের সাথে।