নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“ত্রিপুরা কি আলাদা দেশ?”- বিজেপির বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন অভিষেক বন্দোপাধ্যায়

নিজস্ব প্রতিবেদন: ত্রিপুরার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জামিন পেয়েছেন দেবাংশু সহ তৃণমূলের ১৪ জন যুব নেতা। আদালতে শুনানির সময় খোয়াই থানায় সর্বক্ষণ বসেছিলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। গতকাল বিকালে থানা থেকে বেরিয়ে তিনি সাংবাদিকদের কাছে বলেছেন,”যদি বিজেপি সরকার ভেবে থাকে তৃণমূলকে এইভাবে ভয় দেখিয়ে মারধর করে আটকানো যাবে তাহলে তারা মূর্খের স্বর্গে বাস করছে। তৃণমূলের উপরে যত আক্রমণ আসবে তৃণমূল আরো শক্তিশালী হবে।

ততই আমাদের যেতে পারবে।অতিমারি বিধি নিষেধ লঙ্ঘন করার অভিযোগে তৃণমূল কর্মীদের গ্রেফতার করা হয়েছে অথচ বিভিন্ন জায়গায় বিজেপির দুষ্কৃতীরা আমাদের উপর আক্রমণ করেছে, হাজার হাজার বিজেপি কর্মী থানার বাইরে বিক্ষোভ দেখাচ্ছে অথচ তাদেরকে গ্রেফতার করা হচ্ছে না। এই বেআইনি কার্যকলাপ আর বেশিদিন চলবে না ত্রিপুরার মাটিতে। বিপ্লব দেবের সরকারকে কিভাবে উপড়ে ফেলতে হয় সেটা তৃণমূল ভালোভাবেই জানে।

আরও পড়ুন-“ত্রিপুরার পুলিশ মেরুদণ্ডহীন।”- দেবাংশু দের গ্রেপ্তারে ক্ষোভে সোচ্চার হলেন কুণাল ঘোষ

আগামী দেড় বছরে তৃণমূল লড়াই করে দেখাবে।”এছাড়াও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন যে, “আপনাদের চোখের সামনেই দুপুরে ৫০০ জন থানার সামনে জড়ো হয়েছে। এটাও তাহলে মহামারি আইন ভঙ্গের মধ্যে ফেলা উচিৎ। ত্রিপুরা কি আলাদা দেশ?

আরও পড়ুন-বিদ্যুৎ আইনের সংশোধনের বিরোধিতা করে আবার প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

এখানেও ভারতীয় সংবিধানের আইন প্রয়োগ করা উচিৎ। ত্রিপুরাকে বিজেপি কি পৈতৃক সম্পত্তি বলে দাবি করছে? তৃণমূল কর্মীদের ভুয়ো অভিযোগ দিয়ে গ্রেফতার করা হয়েছে আর জায়গায় জায়গায় বিজেপি কর্মীরা রড, বল্লম, পাথর নিয়ে হামলা করছে তাদের ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে।”এরপরেই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বিকালে থানা থেকে বের হয়ে সাংবাদিকদের বলেন, “আপনারা সবাই জেনে রাখুন আর ১৭ থেকে ১৮ মাস পরেই বিপ্লব দেবের সরকারের পতন ঘটবে।

বিজেপিকে কিভাবে হারাতে হবে তা তৃণমূল কংগ্রেসের খুব ভালভাবেই জানা রয়েছে।”

Related Articles

Back to top button