নিউজঅফবিটআবহাওয়া

ভয়াবহ দুর্যোগের মুখে পড়তে চলেছে ভারত। জলের তলায় তলিয়ে যেতে পারে ১২ টি শহর। জারি হল চূড়ান্ত সর্তকতা।

নিজস্ব প্রতিবেদন: মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা একটি সি লেভেল প্রজেকশন টুল বানিয়েছে যার মাধ্যমে অনেক আগে থাকতেই সমুদ্র থেকে যে কোনো বিপদের আশঙ্কার কথা তারা জানিয়ে দিতে সক্ষম হচ্ছে। সমুদ্রে থেকে আগত যেকোনো ভয়াবহ বিপদের পূর্বাভাস তারা আগাম জানিয়ে দিতে সক্ষম হচ্ছে এই টুলের সাহায্যে। বর্তমানে বিশ্ব উষ্ণায়ন সারা পৃথিবীর কাছে অত্যন্ত গভীরতর একটি সমস্যা। ‌ বিশ্ব উষ্ণায়নের প্রভাবে আন্টার্টিকায় বরফ মারাত্মক হারে গলতে শুরু করেছে।

যার ফলে সমুদ্রের জলতল অনেকটাই বৃদ্ধি পেতে চলেছে। বিজ্ঞানীরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন যে সমুদ্রের তীরবর্তী বিভিন্ন দেশ গুলির বিস্তীর্ণ এলাকা অচিরেই সমুদ্র গর্ভে তলিয়ে যেতে পারে।নাসা জারি করেছে এক ভয়াবহ রিপোর্ট। ‌ সম্প্রতি নাসার রিপোর্ট অনুসারে জানা গেছে আগামী ২১০০ সাল নাগাদ বিশ্বের তাপমাত্রা যথেষ্ট বৃদ্ধি পাবে যার জন্য সমুদ্রের জল স্তর বিপদসীমার উপরে পৌঁছে যাবে।

আরও পড়ুন-আগামী ৫ দিন ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস ছিল আবহাওয়া দপ্তর। ৫ জেলায় জারি হল হলুদ সর্তকতা।

নাসার রিপোর্টে বিপদ সংকেত জারি হয়েছে ভারতের উপকূলবর্তী শহর গুলির উপরে।নাসার আইপিসিসি রিপোর্ট জানিয়েছে যে, ভারতের উপরে এক ভয়াবহ বিপদের ছায়া হাজির হয়েছে। নাসা জানিয়েছে আগামী ২০ বছরের মধ্যে পৃথিবীর তাপমাত্রা ভয়াবহ হারে বৃদ্ধি পাবে। অন্ততঃ ১.৫ ডিগ্রি গড় তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাবে বলে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন-১৮ ই আগস্ট থেকে দুটি টিকার ডোজ নিয়ে বেলুড়মঠে প্রবেশ করতে পারবেন ভক্তরা

এব ফলে ভারতের উপকূলবর্তী ১২ টি শহর চিরতরে সমুদ্রগর্ভে সমাধি নেবে বলে আশঙ্কা জারি হয়েছে।এই রিপোর্টে বলা হয়েছে পারাদ্বীপ এবং তার পার্শ্ববর্তী এলাকা গুলি সহ মুম্বাই, চেন্নাই, ভাবনগর, কান্ডুলা, তুতিকোরিন, ওখা, ম্যাঙ্গালোর, মুরগুমা, কোচি প্রভৃতি অঞ্চলগুলি অচিরেই সমুদ্রের তলায় তলিয়ে যাবে। তাই নাসা আশঙ্কা প্রকাশ করে জানিয়েছে আগে থাকতেই এই সমস্ত জায়গার মানুষজনকে অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া দরকার।

Related Articles

Back to top button