নিউজপলিটিক্সরাজ্য

ঘুরিয়ে বিজেপির আলাদা রাজ্যের দাবিকে কি ইন্ধন দিলেন রাজ্যপাল ? গাঢ় হল জল্পনা।

নিজস্ব প্রতিবেদন: রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় দার্জিলিং গিয়েছিলেন। কার্শিয়াং থেকে দার্জিলিং যাওয়ার পথে তাকে কালো পতাকা দেখিয়েছিল তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা। গতকাল বিজেপির শিলিগুড়ি সাংগঠনিক কমিটির যুব শাখা উত্তরবঙ্গের জন্য আলাদা স্কুল সার্ভিস কমিশন, টি বোর্ডের আলাদা উত্তরবঙ্গের অফিস এবং এইমস হাসপাতালের জন্য এবং বিভিন্ন ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ প্রতিষ্ঠা করার দাবিতে স্মার্ট লিপি দিয়েছেন রাজ্যপালের কাছে।

জানা গিয়েছে মোট ৯ দফা দাবী পেশ করা হয়েছে, যার মধ্যে ৮ দফা দাবীতেই উত্তরবঙ্গের জন্য আলাদা করে কিছু প্রকল্পের দাবি করা হয়েছে।এছাড়া উত্তরবঙ্গের জন্য উত্তরকন্যা বিভিন্ন দপ্তরে পৃথক সচিব নিয়োগের দাবি করা হয়েছে এই স্মারকলিপিতে।শিলিগুড়ি যুব মোর্চার জেলা সভাপতি কাঞ্চন দেবনাথ বলেছেন, “উত্তরবঙ্গের মাটিতে শিক্ষা, শিল্প , কর্ম সংস্থান এবং বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্পের কোনো ব্যবস্থা করছে না পশ্চিমবঙ্গ সরকার।

আরও পড়ুন-“৩৭০ ধারা না ফিরলে ভোটে দাঁড়াবো না।”- আবার সোচ্চার মেহবুবা মুফতি।

‌ বাম আমলে যেমন সমস্ত কিছু থেকে উত্তরবঙ্গ কে বঞ্চিত করে রাখা হয়েছিল সেই একই ঘটনা ঘটছে তৃণমূলের আমলে। তাই আমরা লিখিতভাবে রাজ্যপালকে উত্তরবঙ্গের উন্নয়নের জন্য মোট ৯ দফা দাবীতে স্মারকলিপি দিয়েছি।”এছাড়াও গত বৃহস্পতিবার উত্তরবঙ্গের শিলিগুড়ির বিজেপির সাধারণ সম্পাদক রথীন বসু বলেছেন , “উত্তরবঙ্গের মানুষ রাজনৈতিকভাবে এবং সামাজিকভাবে এবং অর্থনৈতিক দিক দিয়ে অনেকদিন ধরেই বঞ্চনা পেয়ে আসছে।

আরও পড়ুন-“উপনির্বাচনে বিজেপি ভয় পাচ্ছে কেন ? ওদের গণতন্ত্রে বিশ্বাস নেই।”- বিজেপিকে কটাক্ষ দিলীপ ঘোষের।

তাই কয়েকদিন ধরে উত্তরবঙ্গের অনেকেই পৃথক রাজ্যের দাবিতে মুখ খুলেছেন। উত্তরবঙ্গের বেশিরভাগ মানুষ যদি চান তাহলে উত্তরবঙ্গ কে আলাদা রাজ্যের মর্যাদা দেওয়া যেতে পারে। কিন্তু বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব কখনোই চায় না বাংলা বিভাজন হোক।”সম্প্রতি আলিপুরদুয়ারের বিজেপি সভাপতি জন বারলা পৃথক উত্তরবঙ্গের দাবিতে সরব হয়েছিলেন।

Related Articles

Back to top button