নিউজপলিটিক্সরাজ্য

ত্রিপুরায় বেআইনিভাবে আটক করা হল পিকের টিমের ২৩ সদস্যকে। কড়া প্রতিক্রিয়া দিলেন কুণাল ঘোষ।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে বিজেপির পরাজয় অন্যতম ভূমিকা পালন করেছে প্রশান্ত কিশোরের সংস্থা আইপ্যাক । যার ফলে প্রশান্ত কিশোরের উপরে যথেষ্টই নির্ভরশীল হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।এই আবহে জানা গিয়েছে অত্যন্ত চাঞ্চল্যকর একটি খবর। ত্রিপুরায় টিম পিকের দলবলকে আটক করেছে ত্রিপুরা পুলিশ।

আগরতলার উডল্যান্ড পার্ক হোটেলে আইপ্যাকের মোট ২৩ জন কর্মীকে ত্রিপুরা পুলিশ বেআইনিভাবে আটক করে রেখেছে বলে অভিযোগ করেছে তৃণমূল নেতৃত্ব।জানা গিয়েছে আইপ্যাকের ওই দলটি ত্রিপুরাতে সমীক্ষার কাজে গিয়েছিলো। গত সপ্তাহ থেকেই ওই হোটেলে থাকছিলো টিম পিকের দলটি। হঠাৎ করেই গতকাল‌ রবিবার বিপ্লব দেবের পুলিশ ওই হোটেলে হানা দিয়ে আইপ্যাকের সমস্ত কর্মীদের হোটেলে আটক করে রাখে।

আরও পড়ুন-আজ‌ই হতে চলেছে মোদী-মমতা বৈঠক। কি আলোচনা হতে চলেছে এই বৈঠকে? তুঙ্গে জল্পনা

এই বিষয়ে কালীঘাটের তৃণমূলের দপ্তরে অভিযোগ জানিয়েছেন ত্রিপুরার রাজ্য তৃণমূল সভাপতি আশিস লাল সিং। তিনি বলেছেন,”ত্রিপুরার মাটিতে হেরে যাওয়ার ভয়ে রীতিমতো ক্ষমতার অপব্যবহার করে চলেছে বিপ্লব দেবের সরকার। পুলিশকে ব্যবহার করে বিরোধীদের জোরপূর্বক দমিয়ে রাখতে চাইছে বিজেপি।”এদিকে রাজ্য তৃণমূল এই ঘটনায় কড়া প্রতিক্রিয়া জাহির করেছে।

আরও পড়ুন-আগরতলায় পিকের টিমকে আটকে রাখলো ত্রিপুরার পুলিশ। নালিশ পৌঁছালো বাংলাতে।

তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষ ক্ষোভে সোচ্চার হয়ে বলেছেন,”বিজেপি খুব ভালোভাবে বুঝতে পেরেছে যে আগামী ত্রিপুরার বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলের পাল্লা যথেষ্ট ভারী । তাই পুলিশ প্রশাসনের সাহায্য নিয়ে তৃণমূলকে দমিয়ে রাখতে চাইছে। আমাদের বাংলাতেও নির্বাচনী আবহে সারা দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে নেতাদের এনে হাজির করেছিলো ওরা। রাজ্যের কোনো হোটেলে সেই নেতাদের আটকানো হয়নি।

তাহলে পিকের সমীক্ষা টিমকে কোন আইনের বলে আটকানো হল ?”

Related Articles

Back to top button