নিউজপলিটিক্সরাজ্য

ঠিকমত গণনা হলে ১০০ র’ও বেশী আসন পাবে বিজেপি।”- বললেন শুভেন্দু অধিকারী

নিজস্ব প্রতিবেদন: বাংলায় শোচনীয়ভাবে পরাজয় ঘটেছে বিজেপির। ‌ বিধানসভা ভোটে রীতিমতো বিপর্যস্ত হয়েছে বিজেপি তৃণমূলের কাছে। সারা রাজ্যে দিকে দিকে জয়লাভ করেছে জোড়া ফুল। ধ্বস নেমেছে গেরুয়া শিবিরে। রীতিমত হতাশায় ডুবে গিয়েছেন আপামর বিজেপি কর্মী সমর্থক রা।

নন্দীগ্রামে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে শেষ পর্যন্ত অল্প ভোটের ব্যবধানে জিতেছেন শুভেন্দু অধিকারী। ‌ তবে নন্দীগ্রামের ভোট গণনা বেশ গলদপূর্ণ ভাবে হয়েছে বলে দাবি করেছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নন্দীগ্রামের বুথে পুনর্গণনার আর্জি জানিয়ে নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছিলো তৃণমূল।

আরও পড়ুন-“ভোট পরবর্তী হিংসার শিকার হয়েছেন যারা তাদের পরিবারকে দেওয়া হবে ২ লক্ষ টাকা।”- ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

কিন্তু কমিশন তৃণমূলের এই দাবি খারিজ করে দিয়েছেএদিকে সারা রাজ্যে ভোট গণনা যথাযথ হয়নি বলে দাবি করেছে বিজেপির কর্মী-সমর্থকেরা। শুরু থেকেই রাজ্যে হাওয়া বইছিলো বিজেপির। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা অনেকেই বলেছিলেন যে বাংলায় এবারে অনেকটাই পালে হাওয়া রয়েছে বিজেপির দিকে।

আরও পড়ুন-“পশ্চিমবঙ্গের হিন্দুরা সুরক্ষিত নয়।”- বললেন শুভেন্দু অধিকারী

কিন্তু ফলাফল দেখা গিয়েছে সম্পূর্ণ উল্টো। বাংলায় সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়েছে বিজেপি। রাজ্যজুড়ে বিজেপি কর্মীদের ওপর আক্রমণের প্রতিবাদে গত ৫ ই মে ধর্নায় বসেছিলেন বিজেপি নেতৃত্বরা। এই ধর্না মঞ্চে শামিল হয়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারী, দিলীপ ঘোষ, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়, অগ্নিমিত্রা পল প্রমুখেরা

আরও পড়ুন-উস্কানি মূলক মন্তব্যের অভিযোগে মিঠুনের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের মানিকতলা থানায়

এই ধর্না মঞ্চ থেকেই শুভেন্দু বলেছেন,”কেন্দ্রীয় বাহিনীর সাহায্যে ভোট যথেষ্ট শান্তিপূর্ণ হয়েছে। ‌ কিন্তু নির্বাচন কমিশন গণনায় ব্যর্থ হয়েছে। বেশকিছু গণনা কেন্দ্রে বিজেপির এজেন্টকে ঢুকতে দেয়নি তৃণমূলের লোকজন। ওই সমস্ত বুথে কারচুপি হওয়ার দরুন বাংলায় বিজেপি ১০০ ‘র‌ও কম আসন পেয়েছে। কারচুপি না হলে আমরা ১০০’র থেকে বেশি আসন পেতে পারতাম। যদি গণনা সঠিক হত, তাহলে আমরা আড়াই কোটির‌ও বেশী ভোট পেতাম। আমরা পুনর্গণনার দাবি নিয়ে আদালতে যাবো।”

Related Articles

Back to top button