নিউজপলিটিক্স

“বিজেপির টিকিটে ভোটে দাঁড়ালে অবশ্যই জিতবো”- আবার মুকুল রায়ের মুখ দিয়ে বের হল বেফাঁস মন্তব্য

নিজস্ব প্রতিবেদন: বারবার বেফাঁস মন্তব্য করে অস্বস্তিকর পরিস্থিতির মধ্যে পড়েছেন তৃণমূল নেতা মুকুল রায়। যদিও খাতায়-কলমে তিনি এখনো বিজেপি বিধায়ক রূপে বর্তমান রয়েছেন। মুকুল রায় তার নিজস্ব কেন্দ্র কৃষ্ণনগর উত্তরে গিয়েছিলেন দলীয় কর্মসূচি খতিয়ে দেখতে। সেখানেই তিনি একটি বেফাঁস মন্তব্য করে বসেছেন। কৃষ্ণনগর উত্তরে গিয়ে একটি দলীয় অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে মুকুল রায় বলেছেন,

“উপনির্বাচনে ভারতীয় জনতা পার্টি জিতে যাবে আর তৃণমূল কংগ্রেসের ভরাডুবি হবে। ‌ স্বমহিমায় প্রত্যাবর্তন করবে বিজেপি।” কিন্তু এর পরেই তিনি বুঝতে পারেন যে তিনি চরম ভুল করে ফেলেছেন, তার পরেই তিনি তার বক্তব্য শুধরে নিয়ে বলেন, “উপ নির্বাচনে বিজেপির আর কোনো অস্তিত্ব থাকবে না। তৃণমূল কংগ্রেস স্বমহিমায় প্রত্যাবর্তন করবে।”
এই বেফাঁস মন্তব্যের কারণ হিসাবে মুকুল পুত্র শুভ্রাংশু বলেছেন, “মায়ের মৃত্যুর ধাক্কায় এখন‌ও কাটিয়ে উঠতে পারেননি বাবা।

আরও পড়ুন-“অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সহ অন্যান্য নেতাদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের সম্পূর্ণ বেআইনি”- আগরতলা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করল তৃণমূল

এছাড়াও রাজনৈতিক চাপ তাঁর উপর থাকায় তিনি অনেক সময় সাধারণ বিষয়গুলো ভুলে যাচ্ছেন। অনেকটাই মানসিক চাপের মধ্যে রয়েছেন তিনি। তাই ভুল করে তিনি ওই বিবৃতি দিয়ে ফেলেছেন। বাবার শরীর নিয়ে আমরা সকলেই চিন্তিত হয়ে রয়েছি। তাই এই মন্তব্য নিয়ে অতিরিক্ত জল ঘোলা না হলেই সব থেকে ভালো হয়।”

এছাড়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন যে, “মুকুলের চিকিৎসার প্রয়োজন। ওকে অবশ্যই চিকিৎসা করাতে হবে, ওকে আমার দরকার।” এই আবহের মধ্যে আবার বেফাঁস মন্তব্য করে বিতর্কে জড়ালেন মুকুল রায়। গতকাল শুক্রবার পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটির দ্বিতীয় বৈঠকের আয়োজন করা হয়েছিলো উক্ত বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মুকুল রায়। দুপুর দেড়টা নাগাদ বিধানসভা থেকে বেরিয়ে তিনি মন্তব্য করেন যে, “নির্বাচন হলে আবার বিপুল ভোটে জয়লাভ করবো, কিন্তু বিজেপির টিকিটে দাঁড়াবো, তৃণমূলের টিকিটে দাঁড়ালে কি হতে পারে সেটা জানিনা।”

আরও পড়ুন –অপসারণ করা হলো মহুয়া দাস কে। উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের নতুন সভাপতি হলেন চিরঞ্জীব ভট্টাচার্য।

অর্থাৎ মুকুল রায় বলেছেন যে, কৃষ্ণনগর উত্তরে তিনি বিজেপির প্রার্থী হয়ে দাঁড়াবেন। এই উক্তি করে আবার সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোলিংয়ের শিকার হয়েছেন মুকুল রায়। আর পরপর এই ঘটনায় যথেষ্ট অস্বস্তিকর পরিস্থিতির মধ্যে পড়েছে তৃণমূল নেতৃত্ব‌ও।

Related Articles

Back to top button