নিউজবিনোদনভাইরাল & ভিডিও

“নারী বহুগামী হলে নিন্দে কেন?”- এবার নুসরত জাহানের পাশে দাঁড়ালেন লেখিকা তসলিমা নাসরিন।

নিজস্ব প্রতিবেদন: কয়েকদিন ধরে বাংলার রাজনৈতিক আবহ উত্তপ্ত হয়ে আছে নুসরতের মা হ‌ওয়ার খবরে। বসিরহাটের তৃণমূল সাংসদ নুসরত জাহান তাঁর স্বামী নিখিল জৈনের সাথে বিবাহকে অবৈধ বলে দাবী করেছেন। তিনি যশের সাথে বর্তমানে সম্পর্কে জড়িয়েছেন। তাঁর সন্তানটিও নাকি যশের।

এমনটাই গুঞ্জন টলিপাড়ায়। এদিকে নুসরতকে নিয়ে বিস্তর ট্রোল হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। এবার নুসরতের হয়ে কলম ধরেছেন বিখ্যাত বাংলাদেশী লেখিকা তসলিমা নাসরিন। সমাজে মেয়েদের অধিকারের দাবীতে বরাবরই সরব হয়েছেন এই সুপ্রসিদ্ধ লেখিকা।

আরও পড়ুন-“জীবনের অর্থ তোমার সাথে নিয়ে চলে গিয়েছো”- সুশান্তের মৃত্যুবার্ষিকীতে কাতর বার্তা রিয়া চক্রবর্তীর

তিনি বালবার পুরুষতান্ত্রিক এই সমাজের বিরুদ্ধাচারণ করে এসেছেন। তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে বলেছেন,”আমাদের সমাজে সিনেমা জগতে অথবা যেকোন শিল্পজগতে এমন কোনো পুরুষ রয়েছেন যারা বহুগামী নন? তুমি তো উত্তম কুমার বলতে অজ্ঞান। উনি তো গৌরী দেবী এবং সুপ্রিয়া দেবী দুজনের সঙ্গেই থাকতেন। একসময় গৌরী দেবীকে ছেড়ে সুপ্রিয়া দেবীকে বিয়ে না করেই স্বামী স্ত্রীর মতোই থাকা শুরু করলেন।

তুমি তো উত্তম কুমারকে গালি দাও না। তুমি তো সমরেশ বসুরও নিন্দে করো না, উনি তো দু’বোনকে বিয়ে করেছিলেন। প্রখ্যাত বহুগামী রবিশংকরকে নিয়েও তো কিছু বলো না।একজনকে ছেড়ে আরেকজনকে নিয়ে থেকেছেন, একে তো বহুগামিতা বলে না।

তাহলে যে মেয়েটির নিন্দে করছো, সেও তো একজনকে ছেড়ে আরেকজনকে নিয়ে থেকেছে। যা করেছে প্রকাশ্যে, লুকিয়ে নয়, কাউকে ঠকিয়ে নয়। তাহলে তার নিন্দে করছো কেন।সমরেশ বসু বা উত্তর কুমার বা রবিশংকর অনেক বড়, এত বড়োর সঙ্গে কোথাকার কে, তার তুলনা চলে না।

আরও পড়ুন-সমস্ত জল্পনার অবসান ঘটিয়ে প্রকাশ্যে উপস্থাপিত হল নুসরতের বেবি বাম্পের ছবি।

বড় হলে বুঝি অনৈতিক কাজ করা যায়? আর কোথাকার কে দের জন্যই নীতি? নাকি শুধু মেয়েদের বেলায় নীতির প্রশ্ন ওঠে? তোমাদের বৈধ পতিতালয় তো বিবাহিত, অবিবাহিত সব পুরুষের জন্য। পতিতালয়ের গেটে তো ‘শুধু অবিবাহিত পুরুষ অ্যালাউড’ লেখা সাইনবোর্ড নেই। বিবাহিত পুরুষেরা যারা সেখানে যাচ্ছে, তারা তো বহুগামিতা করছে। পুরুষ আর নারীর শরীর তো এক নয়, পার্থক্য আছে।

হরমোনের পার্থক্য। পুরুষদের সেক্সটা বেশি দরকার হয়। নারীর হরমোন যতই টগবগ করুক, তাদের একগামী হতেই হবে। বেচারা পুরুষ! পুরুষের বহুগামিতাকে জাস্টিফাই করার জন্য ধর্ম থেকে শুরু করে হরমোনের আশ্রয় পর্যন্ত নিতে হচ্ছে!!

আরও পড়ুন-টি-শার্ট এবং শর্ট প্যান্টে ভাইরাল শ্রীলেখার ছবি। ট্রোলিং শুরু হলো ব্যাপকভাবে।

আমাদের মায়েরা কি কল্পনা করতে পারতো স্বামী ছাড়া অন্য কারও দিকে কোনওদিন তাকাবে? তুমি চাইছো দুনিয়ার সব মেয়ে তোমাদের মায়ের মতো হোক। কিন্তু তা তো হয়নি, চারদিকে সব চরিত্রহীন বহুগামী মেয়ে।কিন্তু চারদিকে কি চরিত্রহীন বহুগামী পুরুষ নেই?”

Related Articles

Back to top button