নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“দলত্যাগ বিরোধী আইন খুব শীঘ্রই লাগু করবো।”- হুঁশিয়ারি দিলেন শুভেন্দু অধিকারী।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটের পর থেকে উত্তপ্ত ছিল রাজ্য রাজনীতি। এবার আগুনে ঘি পড়ল মুকুল রায়ের আবার তৃণমূলে প্রত্যাবর্তনে। এমনিতেই কয়েকদিন ধরে বেসুরো হয়ে উঠেছিলেন মুকুল রায়, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। অনেকদিন ধরেই বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের সাথে ঠান্ডা লড়াই জারি ছিল মুকুল রায়ের । 

এমনিতেই একুশের ভোটে যথেষ্ট সক্রিয় দেখা যায়নি মুকুল রায় কে। ততটা জনসভা এবং রোড শো তিনি করেননি। এছাড়াও সচরাচর শুভেন্দু অধিকারীর মত মুকুল রায় কে কখনই দেখা যায়নি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করতে। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, একুশের ভোটের কয়েক মাস আগেই বিজেপিতে যোগদান করা শুভেন্দু অধিকারীকে বিরোধী দলনেতা বানানোর জন্যই নাকি যথেষ্ট অসন্তুষ্ট হয়েছেন মুকুল রায়।

আরও পড়ুন-“কুণাল ঘোষের কাছে গিয়েছে বলেই কি শুদ্ধ হয়ে গিয়েছে?”- রাজীবকে তোপ দাগলেন কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়।

শুভেন্দু অধিকারী কয়েকদিন আগেই তৃণমূলকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে বলেছিলেন , “আমি বিধানসভায় বিরোধী দলনেতা পদে আসীন হয়েছি । আগে যা হয়েছে এখন সেই পরিস্থিতির উদ্ভব আর হবে না। তৃণমূলের ক্ষমতা থাকলে একটা বিজেপির বিধায়ক ভাঙিয়ে দেখাক।”তার এই মন্তব্যের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই রীতিমতো মুখের উপর জবাব দিয়ে দিল তৃণমূল।

অন্যতম হেভিওয়েট নেতা মুকুল রায় প্রত্যাবর্তন করেছেন তৃণমূলে। তাঁর মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে রীতিমতো মুখের উপর জবাব পেলেন শুভেন্দু। এই আবহে তিনি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন যে তিনি নতুন দলত্যাগ বিরোধী আইন বলবৎ করবেন।শুভেন্দু বলেছেন, “মুকুলবাবু কে দিয়ে শুরু করেছেন।

আরও পড়ুন-“বোকা বিড়ালকেও তৃণমূলে নিয়ে নিন”- এবার কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে আক্রমণ করলেন বিজেপি নেতা তথাগত রায়।

‌ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অথবা পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা কেউ আইনের উর্ধে নয়। আমি ভারতের আইন মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ এর সাথে আলোচনা করেছি। খুব শীঘ্রই আমি দলত্যাগ বিরোধী আইন লাগু করব। ২০১২ সাল থেকেই মুখ্যমন্ত্রী দল ভেঙে দেওয়া এবং বিরোধী দলকে সমূলে উচ্ছেদ করার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে রেখেছেন।

কংগ্রেস এবং সিপিএম এর দল ভাঙার পর তারপর তিনি বিজেপির দল ভাঙার খেলায় মেতেছেন। এটা উনার দীর্ঘ দিনের অভ্যাস। কলেজের ছাত্র সংসদের ভোট গত ৪ বছর ধরে করা হয়নি। ১০ টি পুরসভায় গত ৩ বছর ধরে কোনো নির্বাচন তিনি করতে দেননি।

আরও পড়ুন-“ক্ষমতার জন্য বিজেপিতে এলে আমরা তাকে রাখবো না।”- নাম না করে মুকুলকে আক্রমণ করলেন দিলীপ ঘোষ।

পঞ্চায়েত নির্বাচনের গণনা কেন্দ্র গুলি দখল করেছেন। স্পিকার হাতে থাকার দরুন দলত্যাগ বিরোধী আইন কে কার্যকর করতে দেননি। কিন্তু আমি বর্তমানে বিরোধী দলনেতা। আমি এই দলত্যাগ বিরোধী আইন কার্যকর করে ছাড়বো।”

শুভেন্দু অধিকারীর মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে এখনো কোন প্রত্যুত্তর দেয়নি তৃণমূল।

Related Articles

Back to top button