নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“ভুল করেছি। দলে জায়গা পেলে নিজেকে শুধরে নেবো।”- আবার মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানালেন দীপেন্দু।

নিজস্ব প্রতিবেদন: রাজ্য বিজেপিতে ধরছে ভাঙন। তৃণমূল থেকে বিজেপিতে আসা নেতারা আবার বেসুরো হয়ে ঝুঁকছেন বিজেপির দিকে। ইতিমধ্যে বিজেপির দলবদলু নেতা সোনালী গুহ, দীপেন্দু বিশ্বাস তৃণমূলে ফিরতে চেয়ে চিঠি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। তৃণমূলের প্রাক্তন সেচমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপিতে যোগদান করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি নিয়ে কাঁদতে কাঁদতে বেরিয়ে এসেছিলেন।

ডোমজুড় থেকেই বিজেপির হয়ে লড়াই করে বিপুল ভোটে হেরেছেন তিনি। কয়েকদিন আগেই তিনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কটাক্ষ করার বিরুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন। তারপর থেকেই তাঁর তৃণমূলে ফেরার জল্পনা জোরদার হয়। পদ্মফুল শিবিরের সাথে বিগত চার বছরের সম্পর্কের ইতি টেনে তৃণমূলে ফিরেছেন মুকুল রায়।

আরও পড়ুন-“ক্ষমতার জন্য বিজেপিতে এলে আমরা তাকে রাখবো না।”- নাম না করে মুকুলকে আক্রমণ করলেন দিলীপ ঘোষ।

এছাড়াও মুকুল রায়ের গত শুক্রবার তৃণমূলে যোগদানের দিনেই বনগাঁর বিজেপি সাংগঠনিক জেলার সহ-সভাপতি পদত্যাগ করেছেন। এছাড়াও সরলা মূর্মূ, বাচ্চু হাঁসদা প্রমুখেরাও তৃণমূলে ফিরতে চেয়ে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানিয়েছেন।এবার তৃণমূলে ফিরতে চেয়ে আবার কাতর আবেদন জানালেন প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক দীপেন্দু বিশ্বাস। তিনি তৃণমূলের সুব্রত বক্সীর হাত থেকে তৃণমূলের পতাকা নিয়ে আবার তৃণমূলে আসার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন।

আরও পড়ুন-“দিলীপ ঘোষ পাগল, মাথামোটা।”- বললেন তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়।

তিনি বলেছেন, “অভিমান করে ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। এবার দলে জায়গা পেলে আমার ভুল শুধরে নেবো। আমি কোনো ক্ষোভ প্রকাশ করে দল ছাড়িনি। আমি আগেই ভুল হয়েছে বলে দিদিকে চিঠি দিয়েছি।”

এখন বসিরহাট দক্ষিণের প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ককে মুখ্যমন্ত্রী দলে জায়গা দেন কি না তা জানা এখন শুধুই সময়ের অপেক্ষা।

Related Articles

Back to top button