“আমি বহিরাগত ন‌ই। কমিউনিস্ট দের চিন্তাভাবনাটাই বহিরাগত”- সল্টলেকের জনসভা থেকে বললেন অমিত শাহ

“আমি বহিরাগত ন‌ই। কমিউনিস্ট দের চিন্তাভাবনাটাই বহিরাগত”- সল্টলেকের জনসভা থেকে বললেন অমিত শাহ

নিজস্ব প্রতিবেদন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ‌ বিজেপির জয়যাত্রাকে বাস্তবায়িত করার যাবতীয় দ্বায়িত্ব এই দুজন‌ই তুলে নিয়েছেন নিজেদের কাঁধে। পরপর বাংলার বুকে জনসভা করে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহ। এখনো চারটি দফার নির্বাচন বাকি রয়েছে। নবান্নের একচ্ছত্র আধিপত্য তৃণমূলের হাত থেকে ছিনিয়ে নিতে রীতিমতো সম্মুখসমরে তৃণমূলের বিরুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছে বিজেপি।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বাংলার মাটিতে একের পর এক জনসভা করে চলেছেন। তেমনি নিরলস পরিশ্রম করে চলেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।গতকাল সটলেক এর জনসভা থেকে তৃণমূলকে একহাত নিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ।‌ তিনি বলেছেন,”মুখ্যমন্ত্রীর ভাষণ শুনবেন, তিনি দুটো জিনিসই তার ভাষণে বারবার বলে থাকেন, একটা হল এনআরসি ইস্যু আর দ্বিতীয়টি হল বহিরাগত তত্ত্ব। দিদি আমি বহিরাগত ন‌ই, আমি ভারতেই জন্মেছি আর মৃত্যুর পর ভারতের মাটিতে বিলীন হয়ে যাব। বহিরাগত হল কমিউনিস্ট ভাইরা, ওদের চিন্তাধারাটাই বহিরাগত।

আরও পড়ুন-মুখ্যমন্ত্রীর প্রচারে কমিশনের নিষেধাজ্ঞার প্রতিবাদে কালো ব্যাজ পরে পথে নামলেন বুদ্ধিজীবীরা।

কংগ্রেসের লিডারশিপ বহিরাগত। তৃণমূলের ভোটব্যাঙ্ক অনুপ্রবেশকারীরা হল বহিরাগত। একমাত্র স্বদেশীয় পার্টি হল বিজেপি, বিজেপির স্থাপনা করেছিলেন বাংলার সুপুত্র শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী। দিদি বাংলার বিকাশের জন্য কিছুই করেননি। দশ‌বছরে তিনি ভাইপো কল্যাণ ছাড়া আর কিছুই করেননি।

মোদীজীর মনে বাংলার গরীব মানুষের জন্য সদা সর্বদা চিন্তা ভাবনা থাকে, কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীর মনে সর্বদা চিন্তা থাকে যে তিনি ভাইপো কে কিভাবে মুখ্যমন্ত্রী করবেন! মোদীজী বাংলায় আইনের শাসন লাগু করতে চান। আমফান, বুলবুলের পরে কেন্দ্রীয় সরকার যে অনুদান পাঠিয়ে ছিলো সেটাও ভাইপোর লোকেরা ভ্রষ্টাচার করে নিয়ে নিয়েছে। তাই এই একুশের ভোটে আপনারাই ভোটের মাধ্যমে সমুচিত জবাব দিন তৃণমূল কে।”