শীতলকুচির কাণ্ডের বিষয়ে মুখ খুললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ

শীতলকুচির কাণ্ডের বিষয়ে মুখ খুললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ

নিজস্ব প্রতিবেদন: শীতলকুচি কান্ডে উত্তাল বাংলার রাজনৈতিক পরিস্থিতি। কোচবিহারের শীতলকুচিতে কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানদের ঘেরাও করে আক্রমণ করার অভিযোগে কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানরা গুলি চালিয়েছে যার দরুন প্রাণ গিয়েছে ৪ জন তৃণমূল সমর্থকের। এই ঘটনায় গতকাল সারা রাজ্য জুড়ে কালা দিবস পালন করেছে তৃণমূল। ‌

মুখ্যমন্ত্রীকে নির্বাচন কমিশন অনুমতি দেয়নি কোচবিহারে নিহতদের বাড়িতে যাওয়ার জন্য। ভিডিও কলে নিহত তৃণমূল সমর্থক দের পরিবারের সাথে কথা বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। ‌ তিনি আশ্বাস দিয়েছেন নিহত তৃণমূল সমর্থক দের পরিবারের পাশে তিনি থাকবেন । ওদিকে ওই বুথেই গুলি করে হত্যা করা হয়েছে আনন্দ বর্মনকে। এই হত্যার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন-“আগামী ২ রা মে পদত্যাগ করার জন্য তৈরি থাকুন।”- মুখ্যমন্ত্রী কে কটাক্ষ করলেন অমিত শাহ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন যে, বুথে ভোট গ্রহণ চলাকালীন বাইকে করে এসে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা বোমা এবং গুলি ছোঁড়ে। গুলি লেগে ঘটনাস্থলেই মারা যান ১৮ বছর বয়সী তরুণ আনন্দ বর্মন।এদিকে বাংলার মাটিতে জনসভায় এসে কোচবিহার কান্ডের প্রসঙ্গে নিজের মতামত ব্যক্ত করেছেন অমিত শাহ। তিনি বলেছেন , “যে বুথে শীতলকুচি কান্ড ঘটেছে, ওই বুথেই সকালে আনন্দ বর্মনের হত্যা করা হয়েছে।

ওখানে যাতে ভোট প্রদান আর না হয় সেজন্যই উনাকে হত্যা করা হয়েছে। ওই বুথেই হামলা করা হয়েছে এবং সিআইএসএফ জ‌ওয়ানদের হাতিয়ার লুঠ করার চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী আনন্দ বর্মনের হত্যার বিষয়ে কিছুই বলেননি। এই ঘটনার দ্বারা প্রমাণিত হয় মুখ্যমন্ত্রী বাংলা রাজনীতিকে কতটা নিচু স্তরে নামিয়ে দিয়েছেন। আনন্দ বর্মন রাজবংশী সম্প্রদায়ের, তিনি মুখ্যমন্ত্রীর ভোটব্যাঙ্কের অনুকূল নয়। এই ধরনের রাজনীতি বাংলার পরম্পরা এবং সংস্কৃতি নয়।”