নিউজকলকাতাবাজার দররাজ্য

জামাই ষষ্ঠীর বাজারে চড়া দামে বিকোচ্ছে ইলিশ-চিংড়ি

নিজস্ব প্রতিবেদন: সামনেই জামাইষষ্ঠী। জামাইকে ওইদিন পঞ্চব্যাঞ্জন রান্না করে খাওয়াতে সকলের‌ই ইচ্ছা রয়েছে। বাঙালির অন্যতম এই জামাইষষ্ঠীর দিকে সকাল থেকেই রাজ্যের বাজারগুলি থাকে রীতিমতো সরগরম। সকাল থেকেই জামাইয়ের জন্য পছন্দের ফল, কাঁচা সবজি, মাছ, মাংস কিনতে থাকেন মানুষজন।

কিন্তু বাধ সেধেছে এবারের করোনার বিধিনিষেধ। করোনার নানা বিধিনিষেধ বলফৎ রয়েছে রাজ্যে। আগামীকাল পর্যন্ত এই বিধিনিষেধ থাকলেও এখনও এই বিধিনিষেধের আবহ বাড়তে পারে বলেই মনে করছেন মানুষজন। বিধিনিষেধের এই পরিস্থিতিতে আগুন লেগেছে বাংলার বাজারে।

আরও পড়ুন-মুম্বইয়ে পেট্রোল সেঞ্চুরির গন্ডী। সেঞ্চুরির পথে এগোচ্ছে কলকাতা।

কাঁচা সবজি থেকে শুরু করে মাছ মাংস যথেষ্ট চড়াদামে বিকোচ্ছে।কলকাতার বিভিন্ন মার্কেটে কার্যত এক‌ই দৃশ্য। অগ্নিমূল্য কাঁচা আনাজের বাজার। একপিস বাঁধাকপি বিকোচ্ছে ৪০ টাকায়।

শসার দাম ৫০ টাকা প্রতি কেজি। আলুর দাম ১৪ টাকা প্রতি কেজি, পিঁয়াজ ৩৫ টাকা প্রতি কেজি‌ , আদা ৮০ টাকা প্রতি কেজি। টমেটোর কেজি প্রতি দাম ৩০ টাকা। ঝিঙো বিকোচ্ছে ৪০ টাকা প্রতি কেজিতে।

আরও পড়ুন-করোনার দাপটে এবং ইয়াসের আবহে আগুন পিঁয়াজের বাজারে। মাথায় হাত মধ্যবিত্তের।

ফুলকপি ৪০ টাকা পিস। এছাড়াও কাঁচা লঙ্কার মূল্য ৬০ টাকা প্রতি কেজি। বেগুন ৬০ টাকা প্রতি কেজি। অর্থাৎ এবারে ষষ্ঠীর বাজারে গৃহস্থের রীতিমতো পকেটে টান পড়তে চলেছে।

এছাড়াও মাছের বাজার‌ও রীতিমতো চড়া। ষষ্ঠীতে জামাইয়ের পাতে চাই ইলিশ-চিংড়ি। কিন্তু এই ইলিশের দাম‌ও যথেষ্ট চড়া। কলকাতার বাজারে আজ ইলিশের দাম প্রায় প্রতিকেজি ১৫০০ থেকে ১৬০০ টাকা।

আরও পড়ুন-পুরানো ৫ টাকার নোটের বদলে বাড়ি বসেই পেতে পারেন ৩০ হাজার টাকা।

প্রায় ১২০০ থেকে ১৩০০ টাকা কেজিপ্রতি বিকোচ্ছে চিংড়ি মাছ। এছাড়াও গলদা চিংড়ি র কেজিপ্রতি মূল্য ৬০০ টাকা। ভেটকির কেজিপ্রতি মূল্য প্রায় ৬০০ টাকা। অনেকেই মনে করছেন জামাইষষ্ঠীর দিন এই মাছের এবং মাংসের দর আরো বাড়বে।

খাসির মাংস কলকাতা বাজারে অনেক জায়গাতেই প্রায় ৭০০ টাকা প্রতি কেজিতে বিক্রি হয়েছে। মুরগী বিকোচ্ছে ২০০ টাকা প্রতি কেজিতে।

Related Articles

Back to top button