উত্তপ্ত নদীয়ার হাঁসখালি; বিজেপির বুথ সভাপতিকে লক্ষ্য করে গুলিচালনা, নেপথ্যে তৃণমূল!

উত্তপ্ত নদীয়ার হাঁসখালি; বিজেপির বুথ সভাপতিকে লক্ষ্য করে গুলিচালনা, নেপথ্যে তৃণমূল!

নিজস্ব প্রতিবেদন:-ফের একবার তৃণমূল এবং বিজেপির রাজনৈতিক তরজাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠতে দেখা গেল নদীয়ার হাঁসখালি এলাকা। তবে এদিন শুধুমাত্র সামান্য পর্যায়ে বিষয়টি থেমে থাকেনি। রীতিমতো বিজেপির বুথ সভাপতিকে গুলির মাধ্যমে আক্রমণের ঘটনা ঘটে গিয়েছে। বিভিন্ন রিপোর্ট সূত্রের খবর অনুযায়ী জানা গিয়েছে,গতকাল কৃষ্ণনগরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সভায় অংশগ্রহণ করে বাড়ি ফেরার পথে আক্রমণ করা হয় বিজেপির ওই বুথ সভাপতিকে।

গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হলেও স্থানীয় অঞ্চলের পরিস্থিতি অত্যন্ত উত্তপ্ত হয়ে রয়েছে। বছর ৪৫ এর ওই বুথ সভাপতির নাম নিত্যানন্দ সরকার।প্রথমে তার উপর গুলি ছুড়ে আক্রমণ করা হলেও তা লক্ষ্যভ্রষ্ট হওয়ায় প্রাণে বেঁচে যান নিত্যানন্দ বাবু। কিন্তু এর পরেই নিত্যানন্দ সরকারের দাবি অনুসারে তৃণমূলের আশ্রিত দুষ্কৃতীরা তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপাতে শুরু করে। যার ফলস্বরুপ তার সারা শরীর বীভৎসভাবে আহত হয়ে রয়েছে। প্রথমে আহত বুথ সভাপতিকে বগুলা গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলেও তার অবস্থার দ্রুত অবনতি ঘটতে থাকে।

আরও পড়ুন-শীতলকুচির জোরপাটকিতে আজ কালাদিবস পালন গ্রামবাসীদের;শহীদ বেদী নির্মাণের পাশাপাশি বের করা হবে মিছিল!

এমতাবস্থায় তাকে দ্রুত কৃষ্ণনগর শক্তিগড় হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। এরইমধ্যে এই ঘটনায় স্থানীয় অঞ্চলে বিক্ষোভ শুরু হয়ে গিয়েছে।এদিন রবিবার সকালে স্থানীয় এলাকার বিজেপি প্রার্থী অসীম বিশ্বাস এই ঘটনার প্রতিবাদে বগুলা বাস স্ট্যান্ড মোড় থেকে বেশ কিছুক্ষণ রাস্তা অবরোধ করে প্রতিবাদ জানান। প্রতিবাদ মিছিলে দোষীদের ক্রমাগত শাস্তির দাবি জানানো হয়েছে। বিজেপির আক্রমণের নিশানায় স্বাভাবিকভাবেই রয়েছে স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস কর্তৃপক্ষ। কিন্তু শাসক দলের নেতাদের তরফে এই অভিযোগ অসঙ্গত দাবি করে খারিজ করে দেওয়া হয়েছে।

আপাতত ঘটনার তদন্ত চালাচ্ছে প্রশাসন। তবে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এই বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি। আহত বিজেপির বুথ সভাপতির অবস্থা আপাতত স্থিতিশীল রয়েছে।কিছুক্ষন তাকে সঠিকভাবে পর্যবেক্ষণে রেখে ছুটি দিয়ে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। প্রসঙ্গত গতকাল চতুর্থ দফার ভোটে শুরু থেকেই পশ্চিমবঙ্গের নানা জায়গায় অশান্তি সৃষ্টি হতে দেখা গিয়েছিল। গতকাল রাজনৈতিক দলের অশান্তিতে এক নতুন ভোটার এবং কেন্দ্রীয় বাহিনীর সাথে বচসার জন্য ৪ যুবক প্রাণ হারিয়েছেন কোচবিহারে। আপাতত এই ঘটনার রিপোর্ট তলব করেছে নির্বাচন কমিশন।