নিউজ

গুজরাটের গোধরায় খেলা হবে কর্মসূচি সম্পন্ন করার অনুমতি পেলেন না মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় খেলা হবে স্লোগানকে সারা রাজ্যের মধ্যে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে দিয়েছিলেন। এই স্লোগান রাজ্যের প্রায় প্রতিটি মানুষের মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়েছিলো। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে পর্যুদস্ত হয়েছে বিজেপি। বাংলায় দিল্লি থেকে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা মন্ত্রীরা বারবার যাতায়াত করেও কিছুতেই মুখ্যমন্ত্রীর আসন ছিনিয়ে নিতে সক্ষম হয়নি।

নির্বাচনে জয়লাভের পরেই সারা দেশজুড়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই খেলা হবে স্লোগান জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। আজ ১৬ ই আগস্ট তৃণমূল কংগ্রেস সারা রাজ্য জুড়ে খেলা হবে দিবসের সূচনা করতে চলেছে। এবার পশ্চিমবঙ্গে এই খেলা হবে দিবস পালনের পাশাপাশি প্রতিবেশী রাজ্য ত্রিপুরাতেও খেলা হবে দিবস পালন করতে তৎপর হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস।এবার প্রধানমন্ত্রীর গড় গুজরাটেও খেলা হবে দিবস পালনের লক্ষ্যে অবিচল রয়েছে তৃণমূল নেতৃত্ব।

আরও পড়ুন –বাংলার সিপিএমের প্রধান কার্যালয়ে লাগানো হচ্ছিল উল্টো পতাকা। সামলে দিলেন মহম্মদ সেলিম।

এর জন্য একটি ট্রফিও প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী আগেই ঘোষণা করেছিলেন যে এবার তৃণমূলের কর্মকান্ড পৌঁছে দেওয়া হবে রাজ্যের বাইরেও। তাই এবার ত্রিপুরার পাশাপাশি গুজরাটেও খেলা হবে দিবসের সূচনা করতে চাইছেন মুখ্যমন্ত্রী। গুজরাটের গোধরায় ফুটবল প্রতিযোগিতা আয়োজন করার লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছিল প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেস।

কিন্তু এই কর্মসূচি পালন করার জন্য খেলার মাঠ পায়নি তৃণমূল কংগ্রেস। গোধরার সেন্ট আর্নল্ড হাইস্কুলে একটি প্রীতি ফুটবল ম্যাচ আয়োজন করা লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছিল প্রবেশ তৃণমূল কংগ্রেস। কিন্তু প্রথমেই এই ম্যাচের অনুমতি প্রদান করেছিল উক্ত স্কুল কর্তৃপক্ষ কিন্তু আবার শেষ মুহূর্তে গতকাল এই ম্যাচ আয়োজন করার অনুমোদন বাতিল করে দিয়েছে উক্ত স্কুল কর্তৃপক্ষ। সেন্ট আর্নল্ড হাইস্কুল গত শনিবার প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেসকে এই মর্মে একটি চিঠি পাঠিয়ে জানিয়েছে যে,

গুজরাটের গোধরায় খেলা হবে কর্মসূচি সম্পন্ন করার অনুমতি পেলেন না মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

“করোনায় ভয়াবহ পরিস্থিতিতে বর্তমানে স্কুলের মাঠ ব্যবহারের অনুমতি দেওয়া যাবে না।” প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেস জানিয়েছিল যে উক্ত মাঠে দুটি টিম বানানো হয়েছিল ফুটবল ম্যাচের জন্য। একটি টিম বানানো হয়েছিল শহীদ ভগৎ সিং এর নামে, এবং অপর একটি টিম বানানো হয়েছিল দেশের বীর সন্তান নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর নামে। এছাড়াও একটি ট্রফিও প্রস্তুত করে রাখা হয়েছিলো বলে জানা গিয়েছে। কিন্তু শেষ মুহূর্তে এই প্রীতি ম্যাচের আয়োজনে দাঁড়ি পড়ে যাওয়ায় যথেষ্ট আশাহত হয়েছে প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেস।

Related Articles

Back to top button