নিউজটেক নিউজরাজ্য

“ঘাটালের সমস্যা একমাত্র মেটাতে পারে ঘাটাল‌ মাস্টার প্ল্যান”- বললেন মুখ্যমন্ত্রী।

নিজস্ব প্রতিবেদন: টানা দুই সপ্তাহ ধরে রাজ্যের মাটিতে ব্যাপক বৃষ্টিপাতের দেখা মিলছে যার জন্য বেশ কিছু নদীতে মারাত্মক হারে জলস্তর বৃদ্ধি পেয়েছে। শীলাবতী নদীর জল বৃদ্ধি পেয়ে ঘাটালের বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। ঘাটালের সাংসদ দেব নিজে কয়েকদিন আগেই ঘাটালে উপস্থিত হয়ে বন্যা পরিস্থিতির পর্যবেক্ষণ করেছেন। এই পরিস্থিতিতে তিনি ঘাটাল বাসীর পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন।

গত মঙ্গলবার ঘাটাল পৌছেছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি গত সোমবার ঝাড়গ্রাম গিয়েছিলেন। গত মঙ্গলবার ফেরার পথে তিনি ঘাটালে বন্যা পরিস্থিতির পর্যবেক্ষণ করেছেন। তাঁর সাথে উপস্থিত ছিলেন ঘাটালের সাংসদ দেব‌ও। রীতিমতো জলে দাঁড়িয়েই মুখ্যমন্ত্রী মানুষের দিকে ভরসার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন।

আরও পড়ুন-“আগামী ৩০ শে আগস্ট পর্যন্ত রাজ্যে বন্ধ থাকবে লোকাল ট্রেনের চলাচল। জারি থাকবে বিধি নিষেধ”- ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

বারবার ঘাটাল মাস্টার প্ল্যানের বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এছাড়াও ঘাটাল‌মাস্টার প্ল্যান বাস্তবায়িত না হ‌ওয়ার জন্য সাংসদ দেব‌ও কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছিলেন।এখনো ঘাটালের মানুষ যথেষ্ট দূর্ভোগের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছেন। এই আবহে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন,”ঘাটাল মাস্টার প্ল্যান এখনো বাস্তবায়িত না হওয়ার দরুন ঘাটালের মানুষ সমস্যার মধ্য দিয়ে দিন অতিবাহিত করছেন। ‌

আরও পড়ুন-বন্যা বিধ্বস্ত ঘাটালবাসীর জন্য কমিউনিটি কিচেন খুলে সহায়তা করছেন অভিনেতা তথা সাংসদ দেব

প্রতিবছর বন্যা হচ্ছে আর মানুষজনের দুর্ভোগের শেষ থাকছে না। যতক্ষণ না পর্যন্ত ঘাটাল মাস্টার প্ল্যান বাস্তবায়িত হবে না যতক্ষণ পর্যন্ত এই বন্যা পরিস্থিতি চলতেই থাকবে। ‌ কলকাতার সল্টলেক যেমন নৌকার মতো, জল জমলে আগে ডুবে যায় তেমনি ঘাটাল হল পশ্চিমবঙ্গের নৌকা। তাই বৃষ্টি হলেই ঘাটালে বন্যা হয়ে যায়। তার উপরে শিলাবতী, কংসাবতী নদীর জল রয়েছে।

আমি সকলকে অনুরোধ করছি আমাদের রিলিফ ফান্ডে যে যা পারবেন সেটা দেওয়ার চেষ্টা করবেন। ত্রিপল থেকে শুরু করে চিঁড়ে, তেল, মুড়ি, বেবিফুড, অন্যান্য শুকনো খাবার যে যেটা পারবেন, রিলিফ ফান্ডে সাধ্যমতো দেওয়ার চেষ্টা করবেন।”

Related Articles

Back to top button