উত্তরপ্রদেশে দুর্ঘটনায় মৃত মালদহের ২ শ্রমিকের পরিবারের পাশে দাঁড়ালেন ফিরহাদ হাকিম।

উত্তরপ্রদেশে দুর্ঘটনায় মৃত মালদহের ২ শ্রমিকের পরিবারের পাশে দাঁড়ালেন ফিরহাদ হাকিম।

নিজস্ব প্রতিবেদন: করোনার আবহে বন্ধ হয়েছে বহু মানুষের রুজি রোজগার। পেটের টানে পরিবারের মুখে অন্ন তুলে দিতে ভিনরাজ্যে কাজ করতে গিয়েছিলেন মালদহের শেরশাহী গ্রামের ১২ জন শ্রমিক। উত্তরপ্রদেশের বারাণসীর অন্তর্গত বাসাসামিত এলাকায় একটি মন্দিরের নির্মাণকাজে তাঁরা যুক্ত ছিলেন।

গত সোমবার সারাদিনের পরিশ্রম শেষে খাওয়া দাওয়া করে তাঁরা মন্দির থেকে কিছুটা দূরে একটি পুরানো বাড়িতে ঘুমাচ্ছিলেন ওই শ্রমিকেরা। হঠাৎ করেই মাঝরাতে ওই বাড়িটি ভেঙে পড়ে। দেওয়াল চাপা পড়ে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু ঘটে হতভাগ্য দুই শ্রমিক এবাদুল মোমিন এবং আমিরুল মোমিনের।মালদহে তাঁর পরিবারের কাছে মৃত্যু সংবাদ এসে পৌঁছাতেই কান্নায় ভেঙে পড়ে তাঁদের পরিবারের লোকজন।

আরও পড়ুন-কলকাতা পুরসভার উদ্যোগে এবার হতে চলেছে ভ্যাকসিনেশন অন হুইলস্

গতকাল মৃত এবং আহত শ্রমিকদের পরিবারের সদস্যদের সাথে দেখা করেছেন ফিরহাদ হাকিম। তাঁদের সান্ত্বনা দেওয়ার পাশাপাশি তুলে দিয়েছেন আর্থিক সাহায্য।গতকাল মালদহে পৌঁছেছিলেন রাজ্যের পরিবহনমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।তাঁর সাথে ছিলেন মালদহের তৃণমূল নেত্রী মৌসম বেনজির নূর। মৃত এবং আহত শ্রমিকদের পরিবারের সাথে দেখা করেছেন তাঁরা।

আরও পড়ুন-‘বিজেপিতে আছে বলেই শুভেন্দুরা বেঁচে গিয়েছেন।’- শুভেন্দু অধিকারীকে আক্রমণ কুণাল ঘোষের।

ফিরহাদ হাকিম বলেছেন, “মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে আপনাদের কাছে এসেছি। এর আগেও মালদহ মুর্শিদাবাদের কোন পরিবারের উপর বিপর্যয় নেমে এলেই আমি এসেছিলাম। উত্তরপ্রদেশে ঘুমন্ত অবস্থায় ছাদ ভেঙে মারা গিয়েছেন হতভাগ্য শ্রমিকরা। উনারা আমাদের বাংলার ছেলে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শ্রমিকদের পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর সবরকম প্রচেষ্টা করছেন।”