নিউজপলিটিক্সরাজ্য

শুভেন্দু অধিকারীকে ‘বাচ্চা’ বলে কটাক্ষ করলেন ফিরহাদ হাকিম

নিজস্ব প্রতিবেদন: বাংলায় তৃণমূলের জনপ্রিয় স্লোগান ছিল ‘খেলা হবে’ যা প্রতিটি মানুষের মুখে মুখে ফিরেছে একুশের ভোটে।এই স্লোগানটি বাংলা ছাড়িয়ে রাজ্যের বাইরেও মানুষের মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়েছে। আগামী ১৬ ই আগস্ট মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সারা রাজ্যে খেলা হবে দিবস পালন করার কথা ঘোষণা করেছেন। ‌ ওইদিন রাজ্যের বিভিন্ন ক্লাব গুলিকে অনুদান দেওয়া হবে এবং তাদের হাতে ফুটবল তুলে দেওয়া হবে।

কিন্তু খেলা হবে দিবসের তারিখটি নিয়ে প্রথম থেকেই আপত্তি জাহির করেছে বিজেপি। বিজেপির বঙ্গ নেতারা তৃণমূলকে কটাক্ষ করে বলেছেন, ১৬ ই আগস্ট দি গ্রেট ক্যালকাটা কিলিং এর ঘটনা ঘটেছিলো, এই কুখ্যাত দিনেই তৃণমূল সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে খেলা হবে দিবস পালন করছে।এবার খেলা হবে দিবসের তারিখ নিয়ে যথেষ্ট আপত্তি জাহির করেছে পশ্চিমবঙ্গের সনাতন ধর্মাবলম্বী সমাজ। ‌ গতকাল সনাতন ধর্মাবলম্বী সমাজের বেশকিছু প্রতিনিধিরা শুভেন্দু অধিকারীকে সাথে নিয়ে রাজ্যপালের সাথে সাক্ষাৎ করেছেন রাজভবনে ।

আরও পড়ুন-“দলের ইতিহাস সম্বন্ধে কিছু জানেন না”- খেলা হবে দিবসের তারিখ বদলের দাবি তোলায় শুভেন্দুকে তোপ দাগলেন কুনাল

রাজ্যপাল তাদের সমস্ত অভিযোগ স্বকর্ণে শুনেছেন।এদিকে শুভেন্দুকে যথেষ্ট কটাক্ষ করেছেন তৃণমূল নেতা তথা পুর প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম। তিনি বলেছেন,”বাচ্চা ছেলে শুভেন্দুর আগে গুজরাট মুম্বাই, উত্তর প্রদেশের গ্রেট কিলিং বা দাঙ্গা নিয়ে কথা বলা দরকার। তারপর বাংলা সম্পর্কে কথা বলা উচিৎ।

বাংলার মানুষ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বাংলার শাসনভারের দায়িত্ব অর্পণ করেছেন সেটা শুভেন্দু অধিকারীর উপর অর্পণ করা হয়নি। তাই খেলা হবে দিবস নিয়ে বেশি উচ্চবাচ্য না করে তার সরে যাওয়া উচিত। শুভেন্দু যেহেতু কালকের বাচ্চা তাই বেশি লাফালাফি করছে। নতুন নতুন পাল্টি খেয়েছে বলে এতটা লাফালাফি করছে।

আরও পড়ুন-“মহিলা মুখ্যমন্ত্রী শাসনকালের ধর্ষণ একটি রাজনৈতিক হাতিয়ার রূপে গণ্য হচ্ছে”- বাগনান গণধর্ষণকাণ্ডে তোপ দাগলেন শুভেন্দু

বিজেপি এমনিতেই বঙ্গ বিদ্বেষী তাই বাংলার মনীষীদের সম্পর্কে তারা যত কম কথা বলবে আমাদের সেটা ভালো লাগবে। নির্বাচন হলেই বিজেপি রবীন্দ্রনাথকে শ্রদ্ধা জানায়। তারপর সারা বছর আর রবীন্দ্রনাথের নাম পর্যন্ত নেয় না। আজ বিজেপি শিক্ষাক্ষেত্রে রাজনীতিকরণ শুরু করেছে। ‌

চাকরির প্রশ্ন পত্রে রাজনীতি টেনে আনছে। এই দলকে অবিলম্বে দেশ থেকে তাড়িয়ে দেওয়া উচিত। দিলীপ ঘোষ, খড়গপুরের বিজেপি মহিলা কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে কুরুচিকর মন্তব্য করেছেন, দেশের নারীশক্তিকে অপমান করেছেন তিনি।”

Related Articles

Back to top button